ঢাকা, সোমবার ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

শিরোনাম

হেফাজতের সঙ্গে আজ বৈঠক করতে পারেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত : 08:36 AM, 13 December 2020 Sunday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

হেফাজতের নেতৃত্বাধীন ইসলামপন্থী দলগুলোর প্রতিনিধি দলের সঙ্গে ভাস্কর্য ইস্যুতে আজ রবিবার বৈঠকে বসতে পারেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। আলোচনায় মধ্যস্থতা করছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী। আলোচনায় সফলতার ওপর নির্ভর করছে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত এর বিষয়টি। ভাস্কর্য ইস্যুতে কঠোর অবস্থানে সরকার। পাঁচ দফা প্রস্তাব ও ভাস্কর্য ইসলামে নিষিদ্ধ এটা বোঝাতে চেষ্টা করবে হেফাজতের নেতৃত্বে ইসলামী দলগুলোর নেতৃবৃন্দ। আলোচনার মাধ্যমে একটা সম্মানজনক পথ খুঁজে পেতে চায় উভয় পক্ষই। আলোচনা সফল হলে পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসার জন্য সদয় সম্মতিপূর্বক একটা দিনক্ষণ নির্ধারণ করা হতে পারে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে এ খবর জানা গেছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে কয়েক দফায় আলোচনা করেছেন হেফাজতের নেতৃত্বাধীন ইসলামী দলগুলোর প্রতিনিধিগণ। ভাস্কর্য ইস্যুতে একটি সম্মানজনক মীমাংসার জন্য আলোচনা অব্যাহত থাকার পর্যায়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক হতে যাচ্ছে। তিন ইসলামী নেতার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হওয়ার পর থেকেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত করে পাঁচ দফা প্রস্তাবসহ আলোচনা করতে চায় হেফাজতের নেতৃত্বে ইসলামী দলগুলো। রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়েছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীম, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী এবং মাওলানা মামুনুল হকের বিরুদ্ধে। কুষ্টিয়ায় রাতের আঁধারে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাংচুরের ঘটনায় সেখানে মামলা হওয়ার পর চারজনকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ওই মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় অভিযুক্তদের বয়ান ও উস্কানিতে ভাস্কর্য ভাংচুর হয়েছে। এরপর থেকেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার জন্য আগ্রহী হয়ে উঠে হেফাজতের নেতৃত্বাধীন ইসলামী দলগুলো।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাক্ষাত চেয়ে চিঠি দিয়েছে হেফাজতে ইসলামের নেত্বাত্বাধীন ইসলামী দলগুলোর পক্ষে কওমি মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত পাওয়ার জন্য ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে যাচ্ছেন তারা। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার জন্য যে চিঠি দেয়া হয়েছে এবং ভাস্কর্যসহ তাদের পাঁচ দফা প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা হবে। হেফাজাতের নেতৃত্বে ইসলামপন্থীরা ভাস্কর্য বিরোধী অবস্থানেই অনড় থাকার কথার বিষয়টিও আলোচনায় উঠে আসবে। ঢাকার দক্ষিণে দোলাইপাড় এলাকায় বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে কয়েক সপ্তাহ আগে কর্মসূচী নিয়ে মাঠে নামে ইসলামপন্থী কয়েকটি দল এবং হেফাজতে ইসলাম। এরই মাঝে কুষ্টিয়ায় শেখ মুজিবের একটি নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এই প্রেক্ষাপটে আওয়ামী লীগসহ স্বাধীনতার পক্ষের দল, সংগঠন ও ব্যক্তিবর্গের রাজনৈতিকভাবে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখানো অব্যাহত আছে। ভাস্কর্য ইস্যুটি নিয়ে একটা উত্তপ্ত পরিস্থিতি তৈরি হলেও সরকার এবং ইসলামপন্থীদের মধ্যে অনানুষ্ঠানিক যোগাযোগ বা কথাবার্তা চলতে থাকে। হেফাজতের নেতৃত্বে ইসলামপন্থীদের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক আলোচনার প্রস্তাব দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবর চিঠি পাঠানোর পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা হবে এবং আলোচনা ফলপ্রসূ হলে পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত করার আয়োজন করা হতে পারে।

হেফাজতে ইসলাম সূত্রে জানা গেছে, হেফাজতের নেতৃত্বে ইসলামপন্থী দলগুলো ১১ জন ওলামার একটি প্রতিনিধি দলের নামের তালিকা তৈরি করেছেন। এই প্রতিনিধি দলটি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করবেন এবং আলোচনা ফলপ্রসূ হলে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত করবেন এই প্রতিনিধি দলটিই। এই তালিকাটি সরকারের কাছে পাঠানো হয়েছে। হেফাজাতে ইসলামের নেতৃত্বে ইসলামপন্থী দলগুলো পক্ষ থেকে সরকারের সঙ্গে আলোচনার বা বৈঠকের ব্যবস্থা করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে কওমি মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসানকে। ইসলাম ধর্মে ভাস্কর্য নির্মাণ জায়েজ নয়- সেই অবস্থানই তারা স্বারাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনায় তুলে ধরবেন। তবে সরকার চাইলে ভাস্কর্য নির্মাণ করতেই পারে। কিন্তু তারা তাদের অবস্থান এবং ধর্মীয় বিষয় তুলে ধরবেন। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের পরিবর্তে যদি বঙ্গবন্ধুর নামে একটা গেট করেন ভাল হয় এমন প্রস্তাবও দিবেন ইসলামী দলগুলোর প্রতিনিধিরা। এখন তা বিবেচনায় নেয়া না নেয়াটা সরকারের বিষয় এমন দৃষ্টিভঙ্গি ও মনোভাব নিয়েই আলোচনায় বসবেন সাক্ষাতপ্রার্থী প্রতিনিধি দলটি।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, সরকারের কাছে দেয়া প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা করতে চায় হেফাজাতের নেতৃত্বে ইসলামী দলগুলো। আলোচনার জন্য সব সময়ই দরজা জানালা খোলা রাখা উচিত। আলোচনা বসলে একটা উপায় বের হতে পারে। আলোচনায় বিকল্প কোন পথ বের হতে পারে। এ জন্যই তো আলোচনা। অনেক জটিল জটিল বিষয় নিয়েও আলোচনার মাধ্যমে সমাধান হয়ে যায়। যুদ্ধক্ষেত্রেও আলোচনা হয়, আবার অনেক বিষয়ে মীমাংসাও হয়। আলোচনা ফলপ্রসূ হবে কিনা সেটা আগেই প্রশ্ন উঠছে কেন ?

সরকারের নীতি নির্ধারক মহলের একজন শীর্ষ ব্যক্তিত্ব বলেছেন, সরকার দোলাইপাড় এলাকায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করবেই। এমন অবস্থান তুলে ধরে আসছে সরকার। ধর্মের সঙ্গে রাজনীতি বিরোধ সৃষ্টি করানো ঠিক হবে না। পৃথিবীর বিভিন্ন ইসলামী দেশগুলোত বিভিন্ন ধরনের ভাস্কর্য আছে। ভাস্কর্যে পূজা করা হয় না, এটা একটা ইতিহাসের অংশ, ঐতিহ্য, স্মৃতিচারণ, সৌন্দর্যবন্ধন ও শিল্পকলা।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT