ঢাকা, রবিবার ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

সিনহা হত্যায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চায় সেনাবাহিনী

প্রকাশিত : 09:38 AM, 3 September 2020 Thursday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

কক্সবাজারের টেকনাফে গত ৩১ জুলাই সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যাকা-ের পর একটি পক্ষ বিশেষ সুযোগ নেয়ার চেষ্টা চালিয়েছিল বলে মন্তব্য করেছেন সেনাবাহিনীপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ। তিনি বলেছেন, সেটি ছিল অন্যায্য বিশেষ সুযোগ।

বুধবার সকালে চট্টগ্রাম সেনানিবাসের প্যারেড গ্রাউন্ডে সেনাবাহিনীর ২৪ পদাতিক ডিভিশনের ৬ ইউনিটের রেজিমেন্টাল কালার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদান শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে তিনি একথা বলেন। জেনারেল আজিজ বলেন, সিনহা হত্যাকা- একটি নৃশংস ও জঘন্যতম ঘটনা। এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হতেই হবে। যারা ক্রিমিনাল তাদের উপযুক্ত শাস্তি হতে হবে যাতে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা সেনাবাহিনীর সার্ভিং বা রিটায়ার্ড কারও সঙ্গে না ঘটে। আমি সেটা প্রত্যাশা করি। ঘটনার তদন্ত প্রক্রিয়ায় সন্তুষ্ট কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে সেনাপ্রধান বলেন, ঘটনার তদন্ত হচ্ছে। এ নিয়ে কিছু বলা যাবে না। যা ঘটেছে তা সবাই জানে। তদন্তে ঘটনা বেরিয়ে আসবে এবং অপরাধীদের সাজা যখন হবে তখনই সন্তুষ্টির বিষয়টি আসবে। এর আগে সন্তুষ্টি নিয়ে বলার সুযোগ নেই। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে সেনাপ্রধান বলেন, আমরা যুগ যুগ ধরে দেখে আসছি কোন ঘটনা যখন ঘটে এ নিয়ে কেউ না কেউ আনভিউ প্রিভিলেস নিতে চায়। সিনহা হত্যার পরও অনেকে সে চেষ্টা করেছিল। তাঁর মতে এখনও চেষ্টা করছে। এ ঘটনা চলতেই থাকবে। তবে সচেতন মানুষ এসব বোঝে। তিনি আরও বলেন, ঘটনার পর শুধু সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকেই ঘৃণা প্রকাশ করা হয়নি, পুলিশপ্রধানও সেদিন ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন। তিনিও ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন। সকলেই এ ঘটনায় মর্মাহত। এ ধরনের একটি ঘটনা নিয়ে অন্যকিছু করার চেষ্টা চালায়- সেটা অত্যন্ত দুঃখজনক, যা কাক্সিক্ষত নয়। সেনাবাহিনীর কোন সদস্যের অস্বাভাবিক কিছু ঘটলে নিজস্ব প্রক্রিয়ায় তদন্ত হয় জানিয়ে জেনারেল আজিজ বলেন, সেটা আমাদের বিভাগীয় প্রয়োজনে। সিনহা হত্যার পর সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকেও সে ধরনের একটি তদন্তের নির্দেশ সঙ্গে সঙ্গে দেয়া হয়েছিল। যার তদন্ত হচ্ছে। আরেক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, এ ঘটনা নিয়ে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে সরকারকে কোন সুপারিশ দেয়ার প্রয়োজন আছে বলে তিনি মনে করেন না। কারণ ঘটনার পর পর সরকার পক্ষ থেকে যে যৌথ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে সে টিমের প্রতি সেনাবাহিনীর সমর্থন রয়েছে। আমি নিশ্চিত এতে পুলিশ বাহিনীরও সমর্থন আছে। এ তদন্ত দল উপযুক্ত যা মনে করবে তা নিয়ে সুপারিশ করবে। এখানে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে সুপারিশ করার সুযোগ আছে বলে তিনি মনে করেন না। তদন্ত টিমে সেনাবাহিনীর সদস্যও আছেন।

এর আগে ২৪ পদাতিক ডিভিশনের ৬ সিগন্যাল ব্যাটালিয়ন প্রধান অতিথি সেনাপ্রধানের কাছ থেকে রেজিমেন্টাল পতাকা গ্রহণ করে। বক্তব্য দানকালে সেনাপ্রধান সকলকে উর্ধতন নেতৃত্বের প্রতি আস্থা, পারস্পরিক বিশ^াস, সহমর্মিতা এবং ভ্রাতৃত্ববোধ বজায় রেখে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সুশৃঙ্খল, দক্ষ ও যোগ্য সেনাসদস্য হিসাবে নিজেদের গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT