ঢাকা, মঙ্গলবার ২৬ জানুয়ারি ২০২১, ১৩ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

শিশুকে দোকানে আটকে রাতভর ধর্ষণ

প্রকাশিত : 11:27 AM, 16 November 2020 Monday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

গাজীপুরের কালীগঞ্জে ফুচকা কিনতে যাওয়া এক শিশুকে দোকানে আটকে রাতভর ধর্ষণ করেছে এক ব্যবসায়ী। এ ঘটনায় চটপটি বিক্রেতাকে আটক করা হয়েছে। এদিকে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে বান্ধবীর বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে এক গার্মেন্টসকর্মী গণধর্ষনের শিকার হয়েছেন। ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত অভিযোগে দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার রাত ও রবিবার এসব তথ্য পাওয়া যায়। খবর স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতাদের।

গাজীপুরের কালীগঞ্জে ফুচকা কিনতে যাওয়া এক শিশুকে (১০) দোকানে আটকে রাতভর ধর্ষণ করেছে এক ব্যবসায়ী। রবিবার পুলিশ ওই চটপটি বিক্রেতাকে আটক করেছে। আটককৃতের নাম মজিবুর রহমান (৪৮)। সে কালীগঞ্জের পোটান এলাকার মৃত আব্দুর রশিদের ছেলে। পাঁচ সন্তানের জনক মুজিবুরের দুই স্ত্রী রয়েছে। কালীগঞ্জ থানার ওসি একেএম মিজানুল হক ও শিশুটির স্বজনসহ স্থানীয়রা জানান, শনিবার সন্ধ্যায় কালীগঞ্জের মোক্তারপুর এলাকায় গাজীপুর-ইটাখোলা বাইপাস সড়ক ঘেঁষে গড়ে ওঠা মুজিবুরের দোকান থেকে ফুচকা কিনতে যায় ১০ বছরের এক শিশু। শিশুটি স্থানীয় পোটান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী। এ সময় ফুচকা ও চটপটি বিক্রেতা মুজিবুর কৌশলে শিশুটিকে একটি ঘরে আটকে রাখে। পরে রাতভর ওই শিশুটির ওপর পাশবিক নির্যাতন করে মুজিবুর। পরদিন রবিবার সকালে মুজিবুর নিজ মোটরসাইকেলে নোয়াপাড়া বাজারে এলাকায় শিশুটিকে ছেড়ে আসে।

এদিকে দীর্ঘ সময়েও শিশুটি বাড়ি না ফেরায় স্বজনরা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করতে থাকে। শিশুটিকে না পেয়ে তারা এলাকায় মাইকিং করে। পরদিন রবিবার সকালে নোয়াপাড়া বাজার এলাকা থেকে শিশুটিকে তার বাবা মা ও স্থানীয়রা উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। বিকেলে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় শিশুটি তার উপর রাতভর পাশবিক নির্যাতনের বিস্তারিত ঘটনা পুলিশ ও স্বজনদের জানায়। এর প্রেক্ষিতে পুলিশ অভিযুক্ত চটপটি ব্যবসায়ী মুজিবুরকে রবিবার তার বাড়ি থেকে আটক করে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

গাইবান্ধায় গার্মেন্টস শ্রমিককে গণধর্ষণ ॥ নারায়ণগঞ্জ থেকে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সহকর্মী বান্ধবীর বাড়িতে বেড়াতে এসে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন এক গার্মেন্টসকর্মী। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে সোহেল মিয়াসহ (৪০) ওই কিশোরীর বান্ধবী আদুরী বেগমকে শনিবার রাতে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোহেল পলাশবাড়ীর বাসুদেবপুর ভগবানপুর গ্রামের কমির মিয়ার ছেলে এবং আদুরী শাখাহার ইউনিয়নের চক মানিকপুর গ্রামের লুৎফর রহমানের মেয়ে এবং জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী।

জানা গেছে, গোবিন্দগঞ্জের শাখাহার ইউনিয়নের দিঘিরহাট চক মানিকপুর গ্রামের লুৎফর রহমানের মেয়ে আদুরী বেগম তার স্বামীসহ ঢাকার নারায়ণগঞ্জে ভাড়া বাসায় থেকে গার্মেন্টসে কাজ করে। একই বাসায় ভাড়া থেকে গার্মেন্টসে কাজ করে ওই কিশোরী। এই সুবাদে আদুরীর সঙ্গে ওই কিশোরীর বন্ধুত্বের সম্পর্ক হয়। গত ১৩ নবেম্বর আদুরী বেগম গাইবান্ধায় তার বাবার বাড়িতে বেড়ানোর কথা বলে ওই কিশোরীকে নিয়ে আসে। আদুরীর দুলাভাই সোহেলের সঙ্গে ওই কিশোরীকে ফুসলিয়ে শুক্রবার সোহেল মোটরসাইকেলযোগে ঘুরতে নিয়ে যায়। দিনভর বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে রাতে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে সোহেলসহ তার চার বন্ধু মিলে ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT