ঢাকা, রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

‘শিল্পের ও শিল্পীর দায়বদ্ধতা বোঝাতে পারিনি, এ ব্যর্থতা আমাদের’

প্রকাশিত : 09:50 AM, 27 July 2021 Tuesday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

দর্শকদের প্রতিবাদের মুখে ‘ঘটনা সত্য’নামের নাটকটি ইউটিউব থেকে প্রত্যাহার করেছে নির্মাতা ও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। অভিযোগ রয়েছে, নাটকটিতে বিশেষ শিশুদের বিষয়ে মিথ্যা ও ভুল তথ্য দেওয়া হয়েছে। রুবেল হাসান পরিচালিত ও আফরান নিশো-মেহজাবীন চৌধুরী অভিনীত ‘ঘটনা সত্য’ নাটকটি প্রথমে একটি টেলিভিশন চ্যানেলে দেখানো হয়। এ নাটকে নিশো একজন গাড়িচালক আর মেহজাবীন গৃহপরিচারিকা। নাটকটির শেষ অংশের একটি বার্তা নিয়েই সমালোচনা শুরু হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, প্রতিবন্ধী শিশু বাবা-মায়ের অতীত ‘পাপের ফল’। বিষয়টি নিয়ে একাধিক সংগঠন থেকে প্রতিবাদ জানানো হয়। এ ছাড়া নাটককেন্দ্রিক বিভিন্ন গ্রুপেও সমালোচনা হচ্ছে। অনভিপ্রেত এ ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়েছেন নাটকটির পরিচালক, শিল্পী ও কলাকুশলীরা।

এদিকে নাটকটির সমালোচনা করে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন গুণী অভিনেতা তারিক আনাম খান। তারিক আনাম খানের স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো:

‘‘কি লিখবো? কি লিখবো না?

কাকে লিখবো? কাকে জানাবো? অথবা জানাবো না?

কার বিরূদ্ধে অভিযোগ করবো ?

আমি কি দায়ী? আমার দায় কি এড়াতে পারি?

অনেকেই আমার ছাত্র, স্নেহভাজন। তারা মান্যিগন্যি করে। এ এক বড় কষ্ট! তাদের কি ভুল শিক্ষা দিয়েছি? বোধ হয় তাই!

তাদেরকে শিল্পের ও শিল্পীর দায়বদ্ধতা বোঝাতে পারিনি, এ ব্যর্থতা আমার, আমাদের অনেকের।

তাদেরকে ইতিহাস জানাতে পারিনি-

‘৬৯ এর গণ-আন্দোলনে শিল্পীদের, অভিনেতাদের কি বিশাল ভূমিকা ছিল। ‘৭১-এ স্বাধীনতা অর্জন করতে সেই অভিনয় শিল্পীরা কি করে যোদ্ধা হয়ে উঠেছিল! তারপর .. ‘৮৪, ‘৮৫, ’৯০… সামরিক শাসন বিরোধী, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবির আন্দোলন…। কেউ কেউ বলতে পারে এগুলো রাজনীতির সঙ্গে জড়িত .. আমি রাজনীতি করতে চাই না।… তাহলে তো বাংলাদেশ হতো না! শিল্প, সংস্কৃতি, ভাষা, ঐতিহ্য, এবং তার প্রতি ভালোবাসা না থাকলে আমার এ দেশের অস্তিত্ব কি?

এ আমারই ব্যর্থতা, আমার পরবর্তী প্রজন্মকে শিল্পীর দায়বদ্ধতার জায়গাটা বোঝাতে না পারা। জনপ্রিয়তা, অর্থ উপার্জন দোষের কিছু নয়। কিন্তু সস্তা জনপ্রিয়তা, অর্থ গৃধ্নুতা, ভোগ বিলাসে মত্ত জীবন- মানুষের মনে (যাদের জন্য শিল্পকর্ম করি) ভালোবাসার স্থায়ী আসন গড়তে পারে না। আমাদের মঞ্চ নাটক, টেলিভিশন নাটক এখনো ঐতিহ্যকে ধারণ করে দর্শকের আশা আকাঙ্ক্ষার প্রতীক হয়ে আছে। তাকে কোনোভাবেই অমর্যাদাকর স্থানে নামানো যাবে না। সুখের কথা, নাটকে একটা পরিবর্তনের আভাষ পাওয়া যাচ্ছে, সেটাকে এগিয়ে নিতে হবে। চাই- সুস্থ সম্মিলিত প্রচেষ্টা।

‘অটিজম’ সম্পর্কে যে কথা একটি নাটকে বলা হল সেটি শিক্ষা এবং জ্ঞানের অভাব নিঃসন্দেহে। আগামী দিনে এই বিশেষ শিশু/মানুষগুলো আমাদের পৃথিবীকে হয়তো অন্যভাবে চেনাবে; কে জানে! শারীরিক ভাবে চ্যালেঞ্জড মানুষগুলো ইতিমধ্যেই তা আমাদের দেখিয়েছেন। তবে আমি ধন্যবাদ জানাই যে ভুলটা বোঝার সঙ্গে সঙ্গে নাটক সংশ্লিষ্টরা অনেকেই ক্ষমা চেয়েছেন। তবে তারা যদি এই বিষয়ে সমাজ সচেতনতার জন্য এগিয়ে আসেন খুশি হবো। শুধু এই নাটকে নয় অনেক নাটকেই শিক্ষা, সচেতনতার বড় অভাব দেখতে পাই। মেয়েদেরকে হেয় করা, অপ্রয়োজনীয় ভায়োলেন্স, রুচিহীন উপস্থাপন, আমাদের অনেক অর্জনকেই খাটো করে দিচ্ছে।

আজ খুব বড় প্রয়োজন প্রকৃত শিক্ষা। শিল্পের শিক্ষাটা, সঠিক পাঠটা গ্রহণ করে শিল্প কর্মে নিজেকে নিয়োজিত করা। সমাজের জন্য, মানুষের জন্য দরদ ভালোবাসা না থাকলে অর্থ উপার্জনের আরো অনেক পথ আছে সেগুলো খোঁজাই শ্রেয় । দর্শন এবং বিশ্বাস না থাকলে শিল্পচর্চা অন্তঃসার শূণ্য ভাঁড়ামো কেবল।

কাল বড় নিষ্ঠুর, সে কাউকে ক্ষমা করে না। দায়বদ্ধতাহীন, শৃঙ্খলাহীন শিল্পচর্চা বেশি দিন টিকে থাকে না। আজ যাকে খুব প্রয়োজন, কাল সে মূল্যহীন- ইতিহাস তাই বলে।’’

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT