ঢাকা, সোমবার ২৬ জুলাই ২০২১, ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

শাহজাদপুরে অন্যের বাড়ি দখল করে সন্ত্রাসীদের নিয়ে খিচুড়ি উৎসবের অভিযোগ স্কুলশিক্ষকের বিরুদ্ধে

প্রকাশিত : 10:11 PM, 25 September 2020 Friday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

নিজের জায়গা সম্প্রসারনের জন্য অন্যের বাড়ি দখল করে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে নিমেষেই ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো বসতঘর । এরপর তা উদযাপনের জন্য সন্ত্রাসীদের নিয়ে খিচুড়ি উৎসব করলেন স্কুলশিক্ষক মোফাক্কার হোসেন মুকুল। এমনই এক ভয়াবহ অভিযোগ উঠেছে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার কাদাই গ্রামের একজন স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধে। তবে ওই শিক্ষক বিষয়টি অস্বীকার করে বলেছেন, ঘরটি ছিল আমার নিজের। আমি নিজেই ঘর ভেঙে দিয়েছি। এদিকে বিষয়টি নিয়ে আদালত পর্যন্ত মামলা গড়িয়েছে। ঘরটি ছিল উপজেলার চরকাদাই গ্রামের রফিকুল ইসলাম মৃদুলের। মৃদুলের বড় ভাই ইসরাইল হোসেন নিজে বাদী হয়ে মুকুল মাস্টারসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৪ সেপ্টম্বর সোমবার উপজেলার চরকাদাই গ্রামে। জানা গেছে, ইসরাইল পাবনা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে পাস করে চাকরি নিয়ে সিঙ্গাপুর চলে যান। এর মধ্যে পৈতৃক সূত্রে পাওয়া সম্পত্তির পাশাপাশি নিজের উপার্জিত অর্থ দিয়ে কিছু জায়গা-জমি ক্রয় করেন। দেশে ফিরে নিজের প্রয়োজনে ছোট ভাই ইসমাইল হোসেন দুলাল ও ইসরাইল নিজে উপজেলার ফরিদ পাঙ্গাসী মৌজার আর,এস ৭২ নং দাগের ১৭ শতাংশের কাতে পশ্চিমাংশে ১০ শতাংশ জায়গা জনৈক চানউল্লার কাছে বিক্রি করে দেন। বাকি সাত শতাংশ জায়গার ওপর ইসরাইলের ভাই রফিকুল ইসলাম মৃদুল টিনের ঘর নির্মাণ করেন। বিপত্তি ঘটে চাঁনউল্লা তাঁর জায়গা স্কুলমাস্টার মোফাক্কার হোসেন মুকুলের কাছে বিক্রির পর। অভিযোগ উঠেছে, মুকুল মাস্টার চাঁনউল্লার কাছ থেকে জায়গা কেনার পর রফিকুলের বসতঘর ভেঙে দিয়ে নিজের জায়গা সম্প্রসারণের জন্য উঠেপড়ে লাগেন। সম্প্রতি মুকুল মাস্টার লোকজন দিয়ে স্থানীয় নেতাদের সহযোগিতায় ঘরটি ভেঙে নিয়ে যান। ঘর ভাঙার কাজ শেষ হতেই সেখানে তিনি খিচুড়ি রান্না করে ভুঁড়িভোজেরও আয়োজন করেন। এমন পরিস্থিতে ইসরাইল শাহজাদপুর থানায় মামলা করতে এলে থানা থেকে আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেওয়া হয়। ইসরাইল নিজেই বাদী হয়ে শাহজাদপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালতে গত ১৬ সেপ্টেম্বর স্কুলশিক্ষক মোফাক্কার হোসেন মুকুলকে ১ নম্বর আসামি করে ১৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলা করে বাদী ইসরাইল ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। গত মঙ্গলবার ইসরাইল জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে শাহজাদপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।এ বিষয়ে শাহজাদপুর থানায় সদ্য যোগদানকারী ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি ) শাহিদ মাহমুদ খান জানান, দুই পক্ষের সমস্যা রয়েছে। তবে মুকুল মাস্টার বসতঘর ভেঙে ঠিক করেননি। তাছাড়া ওই দিন খিচুড়ি রান্না করে ভুঁড়িভোজ হয়েছে কি না তা আমার জানা নেই। শাহজাদপুর থানার এস,আই আসাদুর রহমান জানান, ঘটনার দিন খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে যাই। সেখানে ঘরটি আর দেখিনি। তবে মুকুল মাস্টারের উপস্থিতিতে খিচুড়ির আয়োজন দেখেছি। এদিকে মুকুল মাস্টার জানান, সিমেন্টের শক্তপোক্ত টিনের ঘরটি আমি একাই (নিজে) তৈরি করেছিলাম। লোক দিয়ে সে ঘর আমি ভেঙে দেইনি। আমার জায়গা আমি নিজেই দখলে নিয়েছি। ভুক্তভোগী রফিকুল ইসলাম মৃদুলের অভিযোগ, ঘরটি তার জায়গায় ছিল। মুকুল মাস্টার কতিপয় সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে তা ভেঙে নিয়ে গেছেন।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT