রবিবার ২৯ মে ২০২২, ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

২০১৮ সালের ১৫ ডিসেম্বর পবায় ধর্ষণের পর শিশু হাসিনাকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। ওই রাত ১২'০০টার দিকে উপজেলার বারইপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হাসিনা গোদাগাড়ী উপজেলার রিশিকুল ইউনিয়নের বাইপুর গ্রামের হোসেন আলীর মেয়ে। ঘটনার কয়েক দিন আগে শিশুটি তার নানার বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিল।

রাজশাহীতে ধর্ষণ মামলার আসামি ৩ বছর পর সনাক্ত

প্রকাশিত : 05:20 AM, 18 April 2021 Sunday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

কাজী এনায়েত, রাজশাহী :

রাজশাহী জেলার পবা উপজেলার শিশু হাসিনা খাতুনকে (১২) ধর্ষণ ও গলা কেটে হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

হাসিনার পায়জামায় লেগে থাকা বীর্যের ডিএনএ পরীক্ষার পর শনাক্ত হয়েছে খুনি। পিবিআই তাকে গ্রেফতার করে কারাগারেও পাঠিয়েছে। আসামির নাম নাজমুল হক। নাজমুল শিশু হাসিনার মামা। তিন বছর আগে শিশু হাসিনাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে সে। নাজমুল হক এখন কারাগারে। তার বিরুদ্ধে গত ১১ এপ্রিল আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের উপ-পরিদর্শক (এসআই) গৌতম চক্রবর্তী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মামলাটির তদন্তভার নেওয়ার পর তারা যেসব আলামত জব্দ করেছিলেন, তার মধ্যে একটি হাঁসুয়ায় লেগে থাকা রক্তের সঙ্গে শিশুটির পায়জামায় লেগে থাকা বীর্যের ডিএনএ পরীক্ষা করা হয়। ডিএনএ পরীক্ষার ফল হাতে পাওয়ার পর নিশ্চিত হন খুনি কে। এরপর শিশুটির মামা নাজমুল হককে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে ২০১৮ সালের ১৫ ডিসেম্বর পবায় ধর্ষণের পর শিশু হাসিনাকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। ওই রাত ১২’০০টার দিকে উপজেলার বারইপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হাসিনা গোদাগাড়ী উপজেলার রিশিকুল ইউনিয়নের বাইপুর গ্রামের হোসেন আলীর মেয়ে। ঘটনার কয়েক দিন আগে শিশুটি তার নানার বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিল।

পিবিআই জানায়, শিশুটি প্রাথমিকের সমাপনী পরীক্ষা শেষে নানার বাড়ি পবার বারইপাড়াতে বেড়াতে এসেছিল। তার নানার নাম আকবর আলী। ওই রাতে শিশুটিকে বাড়িতে রেখে নানা ও নানি পাশের বাড়িতে যান। এ সুযোগে মামা নাজমুল হক বাড়িতে ঢুকে শিশুটিকে প্রথমে ধর্ষণ করে।

এরপর গলা কেটে হত্যা করে মরদেহ ফেলে রেখে চলে যায়। শেষ রাতের দিকে নানা-নানি বাসায় ফিরে শিশুটির মরদেহ ঘরের মধ্যে পড়ে থাকতে দেখেন। খবর পেয়ে পুলিশ সকালে গিয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।

রাজশাহী পিবিআইয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আযাদ জানান, শিশুটির বাবা মহানগরীর কর্ণহার থানায় মামলা করলে তারা স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলার তদন্তভার গ্রহণ করেছিলেন।

প্রায় তিন বছর তদন্ত করে খুনিকে শনাক্তের পর তারা অভিযোগপত্র আদালতে দিয়েছেন। ঘটনাটি ফাঁস হয়ে যাওয়ার শঙ্কা থেকে শিশুটি হত্যা করে নাজমুল।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT