ঢাকা, বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

‘মলিন’ মায়ের পাশে মানবিক মানুষ

প্রকাশিত : 01:25 PM, 10 October 2020 Saturday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

নারী সর্বোপরি মা। এবং সে মায়ের পাশেই দাঁড়িয়েছে গোটা দেশ। মায়েদের হয়ে, বোনেদের হয়ে কথা বলছে। তাদের প্রতি জানাচ্ছে অকুণ্ঠ সমর্থন। নারী একা নয়। অসহায় নয়। মিছিলে স্লোগানে তা স্মরণ করিয়ে দেয়া হচ্ছে। মানবিক মানুষের বেদনাবোধ প্রতিবাদের মশাল হয়ে জ্বলছে এখন। মশালের এ আলোয় পুড়ে মরছে অন্ধকার।

ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের ঘটনা, হ্যাঁ, আগেও ঘটেছে। চরম অন্যায় থেকে কখনোই মুক্ত ছিল না সমাজ। কিন্তু সম্প্রতি এ ধরনের একাধিক ঘটনা সামনে আসে। প্রতিটি ঘটনাই নির্মম। নিষ্ঠুর। বিশেষ করে সিলেটে এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে ধর্ষণ এবং নোয়াখালীতে গৃহবধূ নিপীড়নের ঘটনা বিবেকমান মানুষকে স্তম্ভিত করে দেয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্ষণ নির্যাতনের বর্ণনা পড়ে, ভিডিও দেখে নিজের চোখকে বিশ্বাস করা যায় না। গা শিউরে ওঠে। তাহলে কি ধর্ষকদেরই সুসময় চলছে এখন? পারিবারিক শিক্ষা সামাজিক মূল্যবোধ সব পরাস্থ হয়েছে? উত্তর খুঁজে পাচ্ছিল না নারী। মা, তোর বদনখানি মলিন হলে …। লজ্জায় অপমানে মায়ের মুখ মলিন হয়ে গিয়েছিল। মলিন সে মায়ের পাশে এখন সর্বস্তরের জনগণ।

আর মাত্র কয়েকদিন পর শারদ উৎসব। সনাতনী উৎসবে এবারও নারী শক্তির বিশেষ আরাধনা করা হবে। অসুর বদ করে শুভ শক্তির জয় ঘোষণা করবেন দেবী দুর্গা। তার ঠিক আগে আগে নারীর কষ্ট ক্ষোভ অপমানগুলোকে ধারণ করেছে দেশের মানুষ। ব্যক্তি ও প্রগতিবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে নানা কর্মসূচী পালন করা হচ্ছে।

ধর্ষণ বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহীমরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তারা এ দাবি জানান। মাশরাফি তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে প্রশ্ন রাখেন, অন্য নারীকে নিজের মেয়ে, বোন বা স্ত্রীর মতো করেই দেখার দৃষ্টিটা মানুষের কেন থাকবে না?

সাকিব লিখেন, এক শ্রেণীর বর্বর মানুষ বয়স, ধর্ম ও বর্ণ নির্বিশেষে নারী ও শিশুদের প্রতি প্রতিদিনই যে জঘন্য অন্যায় করছে, তারপর আর আমি চুপ করে থাকতে পারি না। আমার অবস্থান তাই সব ধরনের ঘৃৃণা আর সহিংসতার বিরুদ্ধে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের উদ্যোগে ধর্ষণবিরোধী ভিডিওবার্তা প্রকাশ করা হয়। সেখানে ধর্ষণ এবং নির্যাতনবিরোধী বক্তব্য রাখেন ক্রিকেটাররা। বার্তায় জাতীয় দলের ওপেনার তামিম ইকবাল বলেন, নিজ নিজ পরিবারের নারী সদস্যের কথা ভাবুন এবং দেশের প্রতিটি নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিতে এগিয়ে আসুন। মুশফিক বলেন, নারীদের সম্মান করুন, সত্যিকারের মানুষ হোন।

ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার বলেন, নারীকে সম্মান করুন, সত্যিকারের মানুষ হোন।

মাহমুদউল্লাহ বলেন, এখন সময় এসেছে, আসুন সবাই মিলে একতাবদ্ধ হয়ে এই অমানুষগুলোকে সামাজিকভাবে প্রতিহত করি এবং এদের মুখোশ খুলে দিই।

টেস্ট দলের অধিনায়ক মুমিনুল হক বলেন, চলুন আমরা নিজেদের মানুষ হিসেবে প্রমাণ করি এবং নারীর প্রতি সম্মান প্রদর্শন করতে শিখি।

ধর্ষণের প্রতিবাদে মাঠে রয়েছেন সংস্কৃতিকর্মীরাও। গত ৬ অক্টোবর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এক ঘণ্টার অবস্থান কর্মসূচী পালন করেন তারা। সঙ্গীত নাটক নৃত্য ও আবৃত্তির শিল্পীরা ধর্ষকদের প্রতি তীব্র ঘৃণা প্রকাশ করেন। এর পর গত বৃহস্পতিবার শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করেন নাট্যকর্মীরা। গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের ব্যানারে একত্রিত হয়ে আলোর মিছিল করেন তারা। শুক্রবার একই স্থানে সরব হন নাট্য ও আবৃত্তি শিল্পীরা। আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ ও বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের পক্ষ থেকে যে কোন মূল্যে নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানানো হয়। আজ শনিবার দেশের বিভিন্ন প্রান্তে প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করবে সাংস্কৃতিক জোট।

এ প্রসঙ্গে জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ বলেন, নারীর প্রতি সম্মান জানাতে না পারলে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে আমরা বলতে পারি না। সব ধরনের উন্নয়নের জন্য নারীকে পাশে রাখা চাই। অথচ আজকের দিনেও আমরা ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের মতো বর্বর ঘটনা ঘটতে দেখছি। তাই সারাদেশে প্রতিবাদ গড়ে উঠেছে। সম্মিলিত প্রতিবাদ ধর্ষকদের জন্য চরম হুঁশিয়ারি বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

নারীকে ঘুরে দাঁড়ানোর সাহস যোগাচ্ছে রাজনৈতিক দলগুলোও। বিরোধী রাজনৈতিক দল বিএনপি অভিন্ন দাবিতে সোচ্চার হয়েছে। তারও আগে থেকে মাঠে রয়েছে রাজনৈতিক দলের ছাত্রসংগঠনগুলো। ছাত্র ইউনিয়নের সঙ্গে এমনকি যোগ দিয়েছে প্রতিক্রিয়াশীলরাও। সরকার দলের পক্ষ থেকে কর্মসূচী পালন করা হচ্ছে। আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠন মহিলা লীগ ও ছাত্রলীগ নারীর পক্ষে তাদের অবস্থান তুলে ধরছে।

এর বাইরে সব সময়ই সরব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। ফেসবুকে আর কোন ইস্যু নেই, সবাই ধর্ষক মুক্ত সমাজ গড়ার দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন। অনেকেই প্রতিবাদের অংশ হিসেবে নিজের ফেসবুক প্রোফাইল কালো রঙে বদলে নিয়েছেন।

সরকারও ধর্ষণ এবং নারী নির্যাতনের ঘটনায় বিব্রত। দ্রুততম সময়ের মধ্যে ধর্ষকদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এখন চলছে ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদ- রেখে নতুন আইন প্রণয়নের কাজ। সরকারের পক্ষে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানিয়েছেন, আগামী সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রস্তাবটি তোলা হবে। নীতিগত সিদ্ধান্তও হয়ে গেছে। আইন পাস করতে বেশি সময় লাগবে না।

সব মিলিয়ে অপূর্ব জাগরণ। এমন প্রতিবাদ ও জেগে উঠার মধ্য দিয়ে যেন মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ কথা বলছে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT