ঢাকা, মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

বাঙালিরা ভিক্ষুক নয় আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে বিশ্বে মাথা উঁচু করে বাঁচবে ॥ এলজিআরডি মন্ত্রী

প্রকাশিত : 10:17 AM, 17 December 2020 Thursday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

বাঙালিরা ভিক্ষুক নয় আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে বিশ্বে মাথা উঁচু করে বাঁচবে বলেছেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। বুধবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) নগর ভবনে আয়োজিত ৪৯ তম মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন। মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, বাঙালিরা ভিক্ষুকের জাতি হিসেবে বেঁচে থাকার জন্য ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতা অর্জন করেনি। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদেশের মানুষ নিজেদের আত্মমর্যাদা নিয়ে সারা বিশ্বে মাথা উঁচু করে বাঁচবে। এলজিআরডি মন্ত্রী বলেন, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর-এলজিইডিসহ মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা সকল প্রতিষ্ঠানে চলমান কার্যক্রমের গুণগত মান এবং রাষ্ট্রের পরিপন্থী কাজের সাথে যুক্ত থাকলে কারো সাথে কোন আপোস করা হবে না। কেউ যদি নিম্নমানের কাজের সাথে, দূর্নীতির সাথে জড়িত থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্ত্রী বলেন,বিএনপি দল ক্ষমতায় এসে পার্লামেন্টে দাঁড়িয়ে বলে দেশে দুর্ভিক্ষ, খাদ্য ঘাটতি থাকলে ভিক্ষা পাওয়া যায়। আর আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বলেন ভিক্ষুকের জাতি হিসেবে বেঁচে থাকার জন্য ত্রিশ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে দেশ স্বাধীন করা হয়নি।

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙ্গা প্রসঙ্গে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের উপর আঘাত করলে, ভাস্কর্যের বিরোধিতা কোরে জাতির পিতাকে অসম্মানিত করলে পুরো জাতির বুকের রক্তক্ষরণ হয়। তাই এধরনের কার্যক্রম দেশের মাটিতে আর করতে দেয়া হবে না। যদি কেউ চেষ্টা করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে তা মোকাবেলা করবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। প্রধান অতিথি বলেন, বঙ্গবন্ধুর সারাজীবনের লড়াই-সংগ্রামের ফলে, ত্রিশ লক্ষ শহীদ এবং দুই লক্ষাধিক মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে এই দেশ স্বাধীন হয়েছে। হাজারো কষ্টের বিনিময় লালিত স্বপ্নের স্বাধীনতা অর্জিত হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু যখন দেশে ফিরে আসেন তখন বাঙালি জাতি সেই দুঃখ কষ্ট ভুলে যায়।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে যে উন্নয়নের যাত্রা শুরু করেছিলেন, ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগের সে সকল গৃহীত উন্নয়ন কর্মকান্ড বন্ধ করে দেয়। শুধু তাই নয় স্বাধীনতা বিরোধীদের ক্ষমতায় এনে লাল সবুজের পতাকাকে কলংকিত করেছে। আওয়ামীলীগকে নিশ্চিহ্ন করতে দেশী-বিদেশী দোসরদের সাথে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। তাজুল ইসলাম বলেন, ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের মাধ্যমে যে স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন সেই ডাকে সাঁড়া দিয়ে মানুষ শপথ নিয়ে দেশকে স্বাধীন করেছে। এখন সময় এসেছে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করে দেশকে উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ে তোলার শপথ নেয়ার।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT