ঢাকা, মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১, ৩০শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙ্গায় যুবলীগ নেতাসহ তিন আসামি রিমান্ডে

প্রকাশিত : 08:15 AM, 22 December 2020 Tuesday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

কুমারখালী উপজেলার কয়া গ্রামে বিপ্লবী বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙ্গার ঘটনায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার যুবলীগ নেতাসহ তিন আসামিকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। সোমবার দুপুরে কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সেলিনা খাতুন এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আসামিদের প্রত্যেককে তিনদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। গত শনিবার বিকেলে গ্রেফতারকৃতদের আদালতে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করে কুমারখালী থানা পুলিশ। রিমান্ডে নেয়া আসামিরা হলেন কুমারখালী উপজেলার কয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি আনিসুর রহমান আনিস (৩৫), তার দুই ক্যাডার কয়া গ্রামের হোসেন (২০) ও ছেঁউড়িয়া ম-লপাড়া গ্রামের সবুজ হোসেন (২০)। এ ঘটনায় জড়িত আনিসের অন্যতম সহযোগি বাচ্চু পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে পালাতক রয়েছে।

পুলিশ জানায়, বিপ্লবী বাঘা যতীনের আবক্ষ ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনায় কুমারখালী থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে কয়া মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ হারুন-অর-রশিদের দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার তিন আসামিকে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদনসহ গত ১৯ ডিসেম্বর শনিবার বিকেলে আদালতে সোপর্দ করা হয়। আদালত সোমবার দুপুুরে রিমান্ড শুনানি শেষে আসামিদের ৩ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে সোমবার সকালে পুলিশের কড়া নিরাপত্তায় জেলহাজত থেকে তিন আসামিকে আদালতে নেয়া হয়। এরপর দুপুর ১২টার দিকে তাদের কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তোলা হলে রিমান্ড শুনানি শুরু হয়। এ সময় মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী জয়দেব কুমার বিশ্বাস আদালতকে বলেন, ‘ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনায় গ্রেফতারকৃতদের কোন মদদদাতা আছে কিনা তা খুঁজে বের করতে আসামিদের আরও জিজ্ঞাসাবাদ প্রয়োজন। এ কারণে আদালতের কাছে তাদের ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছিল। আদালত উভয় পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক সেলিনা খাতুন আসামিদের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন’। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কুমারখালী থানার ওসি (তদন্ত) রাকিবুল হাসান বলেন, ‘আদালতের আদেশের কপি হাতে পাওয়া মাত্রই আসামিদের তাদের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করবেন। তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনায় মদদদাতাদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করা হবে’। কুমারখালীর কয়া মহাবিদ্যালয়ের ‘ম্যানেজিং কমিটি’ নিয়ে অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের জের ধরে গত ১৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার রাতে কয়া ইউনিয়নের যুবলীগ সভাপতি আনিসুর রহমানের নেতৃত্বে চারজন মিলে বাঘা যতীনের আবক্ষ ভাস্কর্যটি ভাঙচুর করে বলে পুলিশ জানায়। ঘাতকরা ভাস্কর্যটির নাক ও ডান চোয়ালের অংশ বিশেষ ভেঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত করে। ভাস্কর্যটি বাঘা যতীনের জন্মভিটা ও কয়া মহাবিদ্যালয়ের প্রধান গেটের সামনে কুষ্টিয়া-শিলাইদহ সড়কের পাশে স্থাপিত ছিল। বিপ্লবী বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙ্গার ঘটনাটি নজরে এলে কুষ্টিয়াসহ দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি হয়। ইতোমধ্যেই এ ঘটনায় জড়িত কয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আনিসুর রহমান আনিসকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT