ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১৩ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

বরিশালে বরফ দেয়া ইলিশে মোকাম সয়লাব

প্রকাশিত : 08:57 AM, 7 November 2020 Saturday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

বরফ দেয়া ইলিশে ভরে গেছে বরিশালের ইলিশ মোকাম। শুধু বরিশালের মোকামই নয়; দক্ষিণাঞ্চলের সব ইলিশ মোকামে ফিরেছে প্রাণচাঞ্চল্য। শুক্রবার সকালে নগরীর পোর্ট রোড ইলিশ মোকামে দেখা গেছে, টানা ২২ দিন নিষ্প্রাণ এ মোকামটি ইলিশ ক্রয়-বিক্রয়ে সরগরম হয়ে উঠেছে। এদিকে রাজশাহীর পদ্মায় মিলছে না ইলিশ। এতে জেলেরা হতাশ হয়ে পড়েছেন।

বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সকাল সাতটা থেকে মোকামে ট্রলার ও নৌকাযোগে ইলিশ আমদানি শুরু হয়েছে। ২২ দিন পর ইলিশের ক্রেতাও ছিল পর্যাপ্ত। এর আগে ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে বুধবার রাত ১২টা থেকে শুরু হয়েছে ইলিশ শিকার। কিন্তু মাত্র ৪/৫ ঘণ্টার ব্যবধানে বৃহস্পতিবার সকালে বিক্রির প্রথমদিনেই বরফ দেয়া ইলিশে সয়লাব হয়ে যায় ইলিশ মোকাম।

আড়তদার এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অজিত দাস জানান, প্রথমদিনে (বৃহস্পতিবার) পোর্ট রোডের ইলিশ মোকামে দেড় শ’ মণ ইলিশের আমদানি হয়েছে। এরমধ্যে এলসি সাইজের (৬০০-৯০০ গ্রাম ওজন) ইলিশের পাইকারি মূল্য ছিল প্রতি কেজি সাত শ’ টাকা। এক কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হয়েছে নয় শ’ টাকা কেজি দরে। খুচরা বিক্রেতারা আরও এক থেকে দেড় শ’ টাকা বেশি দামে বিক্রি করেছেন।

এই মৎস্য ব্যবসায়ী আরও জানান, মোকামে যে ইলিশের আমদানি হয়েছে তা বুধবার মধ্যরাতে নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পর স্থানীয় নদ-নদীতে আহরণ করা হয়। সাগরের ইলিশের আমদানি হবে আরও ২-৩ দিন পর।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বিক্রি হওয়া বেশিরভাগ ইলিশ সদ্য ডিম ছেড়েছে। যে কারণে চ্যাপ্টা ও লম্বা হয়ে গেছে। তবে এরমধ্যে পেটে ডিম থাকা ইলিশও ছিল। এছাড়া বরফ দেয়া অনেক ইলিশ মাছ দেখেই বোঝা যাচ্ছে ওই মাছগুলো নিষেধাজ্ঞার মধ্যে আহরণ করে লুকিয়ে রাখা হয়েছিল।

রাজশাহীর পদ্মায় মিলছে না ইলিশ ॥ শিকারের ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে জেলেরা মাছ শিকারে নামলেও রাজশাহীর পদ্মায় মিলছে না ইলিশ। বৃহস্পতিবার রাত থেকে জেলেরাও নেমে পড়েছেন জাল-নৌকা নিয়ে। কিন্তু রাজশাহীর পদ্মা নদীতে ইলিশের আকাল। মধ্যরাতেই যে জেলেরা মাছ ধরতে নেমেছিলেন সকালে তারা হতাশ হয়ে ফিরেছেন। দু-চারটা জাটকা ছাড়া কিছুই মেলেনি।

জেলেরা জানিয়েছেন, পদ্মায় এমন চিত্র এবারই প্রথম দেখছেন তারা। আগের বছরগুলোতে নিষেধাজ্ঞা শেষেই প্রচুর ইলিশ পাওয়া গেছে। কখনও কখনও দেখা গেছে, নিষেধাজ্ঞা শেষেও ইলিশের পেটে ডিম। কিন্তু এবার ইলিশ বড়ই হয়নি। এখনও জাটকা হয়েই আছে। তাও পরিমাণে খুব কম। মা ইলিশ রক্ষায় গত ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নবেম্বর পর্যন্ত নদ-নদীতে সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ ছিল। গত কয়েক বছর ধরে ইলিশ মাছের প্রজনন নির্বিঘ্ন করতে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে সরকার। এ সময় সরকারের পক্ষ থেকে খাদ্য সহায়তা হিসেবে জেলেদের ২০ কেজি করে চাল দেয়া হয়।

রাজশাহীর পবা উপজেলার নবগঙ্গা মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির কোন সদস্যরা অনটনে থাকলেও নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার অপেক্ষায় ছিলেন। এই সমিতির সাধারণ সম্পাদক আইনাল হক বলেন, রাতেই আমরা জাল নিয়ে নদীতে নামি। কিন্তু ইলিশের দেখা নেই। যা পেয়েছি সেগুলোকে ইলিশ বলা যায় না। এগুলো আকারে খুবই ছোট। বাজারে এগুলোর দাম নেই। তিনি বলেন, এবার পদ্মায় ইলিশের আকাল। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা চলাকালেও ভারতীয় জেলেরা পদ্মায় মাছ ধরেছে। তারা এসব জাটকাই ধরে নিয়ে গেছে।

এদিকে নিষেধাজ্ঞা শেষে পদ্মার ইলিশ কেনার আশায় বাজারে ভিড় করছেন ক্রেতারা। কিন্তু মাছ না পেয়ে তারাও হতাশ। শুক্রবার সকালে রাজশাহী নগরীর সাহেববাজার মাছবাজারে গিয়ে এমন চিত্র দেখা যায়। জুলফিকার হোসেন নামে এক ক্রেতা বলেন, ইলিশ ধরার নিষেধাজ্ঞা শেষ হয়েছে। তাই ভেবেছিলাম বাজারে কম দামে ইলিশ পাওয়া যাবে। কিন্তু বাজারে তেমন ইলিশ নেই।

একই বাজারের বিক্রেতা সাইদুল ইসলাম বলেন, প্রতিবছর নিষেধাজ্ঞা শেষ হলে পরদিনই বাজারে যে পরিমাণ পদ্মার ইলিশ ওঠে এবার তার তিন ভাগের একভাগও আসেনি। আকারে ছোট ছোট কিছু ইলিশ এসেছে। জেলেরা তাদের জানিয়েছেন পদ্মায় ইলিশ কম। এ অবস্থা হলে সাগরের ইলিশ এনেই তাদের চাহিদা মেটাতে হবে। দু’একদিনের মধ্যেই রাজশাহীতে সাগরের ইলিশ ঢুকতে শুরু করবে। পদ্মায় ইলিশ কম থাকার বিষয়ে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা অলক কুমার সাহা বলেন, আমাদের কাছেও মনে হয়েছে পদ্মায় এবার ইলিশের প্রাপ্যতা কম। কী কারণে ইলিশ কম তা হুট করে বলা সম্ভব নয়। এটা গবেষকরা বিশ্লেষণ করবেন। তারপর তারা এর কারণ নিশ্চয় বলতে পারবেন।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT