ঢাকা, বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১, ২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

বসতভিটা বিক্রয় করে যৌতুক

দৌলতপুরে প্রতারণা করে বাল্যবিয়ে

প্রকাশিত : 01:52 AM, 8 October 2020 Thursday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

সুমন আহম্মেদ শান্ত: কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলার হুগোলবাড়িয়া ইউনিয়নের বেগুনবাড়ি গ্রামের সফিকুল ইসলামের এক কিশোরি মেয়ের সাথে প্রতারণা করে বাল্য বিবাহ করেছে পিয়ারপুর ইউনিয়ন এর জয়ভোগা গ্রামের আজমোলের ছেলে মাসুম প্রতারণা করে বাল্যবিবাহ করেছে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে অনুসন্ধানে গেলে বেরিয়ে আসে অনেক অজানা তথ্য তথ্য।
এ বিষয়ে কিশোরীর বাবা সফিকুল জানান, অনুমানিক ৩ বছর আগে আমার বড় মেয়ে জুলেখার সাথে জয়ভোগা গ্রামের আজমোলের ছেলে মাসুমের বিয়ে হয়। বিয়ে হওয়ার ২ বছর পরে আমার মেয়ের কোলজুড়ে আশে এক পুত্র সন্তান কিন্তু সন্তান জন্ম দেয়ার এক মাসের মধ্যে আমার বড় মেয়ে জুলেখা মারা যায়। বড় মেয়ে মারা যাওয়ার পর পর আমার জামাই ও বিয়াই ছোট মেয়ের খাদিজার সাথে আবার মাসুমের বিয়ে দেওয়ার কথা বলে কিন্তু আমি তাদের কথায় রাজি হই নাই। কারন আমার বড় মেয়ে মারা গেছে বাল্যবিবাহর কারনেই। আমি রাজি না হওয়ার কারনে আমার স্ত্রী ও আমার ছোট মেয়েকে কৌশলে ডেকে তাদের বাড়িতে নিয়ে বিয়ে করিয়ে নেয়। বিষয়টি আমি জানার পরে আমার কিছু করার ছিলোনা কারন তাদের কৌশলের কাছে আমি হেরে যায়।
এ বিষয়ে সফিকুলের স্ত্রী জানান, আমার মেয়ে মারা যাওয়ার পর আমাকে ও আমার মেয়েকে কৌশলে ডেকে নিয়ে স্থানীয় নেতা জয়ভোগা গ্রামের মৃত কাদের মন্ডলের ছেলে আতিয়ারের সহযোগীতায় তারা কৌশলে বিয়ে করে নেই। কিন্তু আমি বুঝতে পারিনি তারা ভূয়া কাজী দিয়ে নাম মাত্র বিয়ে পড়িয়েছে। মেয়ে বিয়ের পর দুই মাস যেতে না যেতে যৌতুকের দাবি করে, মেয়ের সুখের জন্য আমাদের শেষ সম্বল বসত ভিটা বিক্রয় করে ৬০ হাজার টাকা যৌতুক দিতে বাধ্য হই। তার পরও হলোনা সংসার বিয়ের ৭ মাস যেতে না যেতে আমার মেয়েকে বাড়ি থেকে বের করে দেয় তারা। এখন বলছে আমার মেয়ের নাকি বিয়েই হয় নাই।
এ দিকে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে জানান, গরিব মানুষের মেয়েকে কৌশলে বিয়ে করলো আবার অসহায় পরিবারটির শেষ সম্বল বসতভিটা বিক্রি করে যৌতুক নিলো। তারা এখন পরের জায়গায় বসবাস করছে সংসার হচ্ছে না অসহায় পরিবারের মেয়েটির। বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত করে আমরা বিচার দাবি করছি। এ বিষয়ে কৌশলে বিবাহ দেওয়ার প্রধান স্থানীয় নেতা আতিয়ার তার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি জানান আমি বিয়েতে ছিলাম না আমার নামে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। এ বিষয়ে মাসুমের সাথে কথা বলার চেষ্টা করলে তিনি ক্যামেরায় কথা বলতে রাজি হন না, পরে এক পর্যায়ে তিনি জানান, আমি বিয়ে করেছি আমার কোন কাবিননামা নেই এবং আমি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে চাই না। আমার নামে ব্রাকে অভিযোগ করেছে সেখানে যেটা হবে সেটা হবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT