ঢাকা, সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১, ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

দেশ-মানুষকে ভালবেসে কর্তব্য পালন করতে হবে

প্রকাশিত : 08:19 AM, 25 December 2020 Friday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশ ও দেশের মানুষকে ভালবেসে নিজেদের কর্তব্য পালনের জন্য সেনাবাহিনীর নবীন কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, সব সময় এই কথাটা মনে রাখতে হবে যে দেশকে ভালবাসতে হবে, দেশের জন্য কর্তব্য পালন করতে হবে। কারণ তোমরা যে শপথ গ্রহণ করেছ, এই শপথ গ্রহণের মধ্য দিয়ে এ দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব রক্ষার একটা বিরাট দায়িত্ব তোমাদের কাঁধে পড়ল। সেই কথাটা সব সময় মনে রাখতে হবে।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের ভাটিয়ারির বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে অনুষ্ঠিত ‘রাষ্ট্রপতি প্যারেড ডিসেম্বর-২০২০ এবং ৭৯ বিএমএ দীর্ঘমেয়াদী কোর্স’ সমাপনী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে প্রধান অতিথির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নবীন সেনা অফিসারদের বিদেশে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার মতো নিজেদের যোগ্য হিসেবে গড়ে তোলারও আহ্বান জানান। তিনি বলেন, দেশে-বিদেশে আমাদের সেনাবাহিনীকে দায়িত্ব পালন করতে হয়। তাই সর্বক্ষেত্রে তাঁরা দক্ষ থাকবে, উপযুক্ত থাকবে এবং আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন হবে- সারাবিশ্বের যেখানেই যাবে সেখানেই যেন দেশের সুনাম অক্ষুণ্ন রাখতে পার, সেদিকে সর্বদা সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।

১৯৭৫ সালে জাতির পিতা বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে নবীন ক্যাডেটদের উদ্দেশে যে ভাষণ দিয়েছিলেন, সেখান থেকে উদ্ধৃত করে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি তোমাদের জাতির পিতা হিসাবে আদেশ দিচ্ছি, তোমরা সৎ পথে থেকো, মাতৃভূমিকে ভাল বাইসো। ন্যায়ের পক্ষে দাঁড়াবা, গুরুজনকে মেনো, সৎ পথে থেকো, শৃঙ্খলা রেখো, তাহলে জীবনে মানুষ হতে পারবা।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জীবনে সব থেকে বড় কথা সততা, নিষ্ঠা, একাগ্রতা এবং দেশমাতৃকাকে ভালবাসা। জাতির পিতার এই নির্দেশনা, এই উপদেশ আমি মনে করি চলার পথে সব সময় সবাই মনে রাখবা।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধ করে বিজয় অর্জনকারী একটা দেশ। আমরা বিজয়ী জাতি। জাতির পিতার নেতৃত্বেই মুক্তিযুদ্ধে আমরা বিজয় অর্জন করেছি। কাজেই, সেই কথাটা মাথায় রেখে সবসময় যেন মাথা উঁচু করে আমরা বিশ্ব দরবারে চলতে পারি সেভাবেই নিজেকে তৈরি করতে হবে এবং দেশের মানমর্যাদা সমুন্নত রাখতে হবে।

সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। পরে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে বিভিন্ন কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য নবীন ক্যাডেটদের মাঝে তিনি পুরস্কার বিতরণ করেন। ব্যাটালিয়ন সিনিয়র আন্ডার অফিসার মোঃ মাহমুদুল হাসান শ্রেষ্ঠ চৌকস ক্যাডেট হিসেবে ‘সোর্ড অব অনার’ লাভ করেন। তিনি সেনাবাহিনীর বিষয়ে সর্বোচ্চ নম্বর অর্জন করায় ‘সেনাবাহিনী প্রধান স্বর্ণ পদকও’ অর্জন করেন।

অনুষ্ঠানে নবীন ক্যাডেটদের শপথবাক্য পাঠ করানো হয়। প্রধানমন্ত্রীকে রাষ্ট্রীয় সালাম জানানো হয় এবং প্রধানমন্ত্রী নবীন ক্যাডেটদের মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজ উপভোগ করেন। এ কুচকাওয়াজের মাধ্যমে মোট ১১৬ বাংলাদেশী, ৩ ফিলিস্তিনী এবং এক শ্রীলঙ্কান ক্যাডেটসহ মোট ১২০ ক্যাডেট কমিশন লাভ করেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে কমিশনপ্রাপ্ত অফিসারগণের মধ্যে ১০২ পুরুষ ও ১৪ মহিলা ক্যাডেট রয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী নবীন ক্যাডেটদের উদ্দেশ করে আরও বলেন, সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণের জন্য যা যা প্রয়োজন সেটা করা হচ্ছে। পাশাপাশি, জাতির পিতার কাক্সিক্ষত ক্ষুধা ও দারিদ্র্য মুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ গড়তে সার্বিকভাবে কাজ করা হচ্ছে এবং সেই লক্ষ্যে পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার পাশাপাশি দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা প্রণয়ন করে উন্নয়নের কাজ চলছে।

তিনি বলেন, ’৪১ সালে বিশ্বে বাংলাদেশ হবে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ। সেই সময় দেশ পরিচালনায় আরও উঁচুমানের অফিসার হিসেবে আজকের যারা নবীন সেই তোমরাই দায়িত্ব পালন করবে। ’৪১ এর দেশ গড়ার সৈনিক হিসেবে তোমরাই দায়িত্ব পালন করবে। সে কথাটা মাথায় রেখেই নিজেদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব তোমাদের পালন করতে হবে। তিনি এ সময় শতবর্ষ মেয়াদী ‘ডেল্টা পরিকল্পনা-২১০০’এর প্রসঙ্গ টেনে বলেন, এই ভূখণ্ড একটি উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে উঠবে এবং জাতির পিতার এই স্বপ্ন আমরা পূরণ করব, সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি। দেশ ও দেশের মানুষকে ভালবেসে নিজেদের কর্তব্য পালনের জন্য সেনাবাহিনীর নবীন কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে আমাদের সেনাবাহিনী প্রতিটি ক্ষেত্রেই নিষ্ঠার সঙ্গে তাঁদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে এবং দেশে-বিদেশে সুনাম অর্জন করছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনেও আমাদের সেনাবাহিনী যথেষ্ট অবদান রেখে যাচ্ছে। এর ফলে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে শান্তি রক্ষায় অনেক অবদান আমাদের সেনাবাহিনীর অফিসাররা রেখে যাচ্ছেন এবং প্রতিটি দেশেই আমাদের দেশের সশস্ত্র বাহিনী তথা সেনাবাহিনীর প্রশংসা করা হচ্ছে। এই প্রশংসা যখন আমরা শুনি তখন সত্যিই গর্বে আমার বুক ভরে যায়। সেজন্য সকলকে আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

অনুষ্ঠানে মানুষের অধিকার আদায়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আজীবন সংগ্রামের কথা প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তৃতায় তুলে ধরেন। একই সঙ্গে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যার ঘটনা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী আবেগজড়িত কণ্ঠে ঘাতকের বুলেটে সেদিন প্রাণ হারানো জাতির পিতার জ্যেষ্ঠপুত্র মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল, মুক্তিযোদ্ধা শহীদ লেফট্যানেন্ট শেখ জামাল ও শিশুপুত্র শেখ রাসেলের কথাও স্মরণ করেন। ছোট ভাই শেখ রাসেলের কথা মনে করে বাকরুদ্ধ প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাত্র ১০ বছর বয়স ছিল রাসেলের। তার জীবনে একটাই স্বপ্ন ছিল, সে সেনাবাহিনীর অফিসার হবে। কিন্তু ঘাতকের বুলেট সেদিন সেই স্বপ্নেরও মৃত্যু ঘটিয়েছিল। তাই আজকে তোমাদের (কমিশনপ্রাপ্ত নবীন সেনা অফিসার) মাঝে যখন আসি, আমার সেই কথাটিই মনে পড়ে। মনে হয় আমিও তোমাদের (সশস্ত্র বাহিনী) পরিবারেরই একজন। কাজেই তোমাদের প্রতি সব সময় আমার দোয়া থাকবে, আশীর্বাদ থাকবে।

বর্তমান কোভিড-১৯ সময়কে বাংলাদেশসহ সমগ্র বিশ্বের জন্যই একটি ‘ক্রান্তিকাল’ আখ্যায়িত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এর ফলে আমাদের অর্থনীতি স্থবির হয়ে পড়ছে, জীবনযাত্রা সীমিত হয়ে যাচ্ছে এবং প্রতিটি ক্ষেত্রেই মানুষের জীবনে দুর্ভোগ আসছে। এই করোনা মোকাবেলায় আমাদের সেনাবাহিনী বাংলাদেশের মানুষকে সচেতন করা, তাঁদের পাশে দাঁড়ানো এবং এবং সাহায্য করায় বিরাট অবদান রেখে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ সেবাহিনীকে ‘জনগণের সেনাবাহিনী’ আখ্যায়িত করে বলেন, এজন্য যেকোন দুর্যোগ মোকাবেলায় বা যে কোন সমস্যায় আমি দেখেছি আমাদের সেনাসদস্যরা মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাঁদের সাহায্য-সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা তাঁর দূরদর্শী চিন্তার মাধ্যমে একটি স্বাধীন-সার্বভৌম দেশের উপযোগী উন্নত ও পেশাদার সশস্ত্র বাহিনীর অপরিসীম গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেছিলেন এবং সে কারণেই একটি প্রশিক্ষিত, শক্তিশালী ও দক্ষ সেনাবাহিনী গড়ে তোলার লক্ষ্যে ১৯৭৪ সালে তিনি কুমিল্লা সেনানিবাসে ‘বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি’র উদ্বোধন করেন। যা ছিল বাংলাদেশের জন্য এক ঐতিহাসিক ও যুগান্তকারী পদক্ষেপ। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৪ সালেই আমাদের জন্য ‘প্রতিরক্ষা নীতি’ প্রণয়ন করেন উল্লেখ করে সরকারপ্রধান আরও বলেন, জাতির পিতা প্রণীত সুদূরপ্রসারী প্রতিরক্ষা নীতির আলোকেই সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নের জন্য আমরা ‘ফোর্সেস গোল ২০৩০’ প্রণয়ন করেছি। এর আওতায় আওয়ামী লীগ সরকার বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে নতুন নতুন পদাতিক ডিভিশন, ব্রিগেড, ইউনিট ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার পাশাপাশি সেনাবাহিনীর সার্বিক উন্নয়নে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে চলেছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, নারীর ক্ষমতায়ন এবং সকল স্তরে নারীর অংশীদারিত্ব নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আমাদের সরকার ২০০০ সালে সর্বপ্রথম দীর্ঘমেয়াদী কোর্সে মহিলা অফিসার নিয়োগ এবং ২০১৩ সালে সর্বপ্রথম মহিলা সৈনিক ভর্তির যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিকে একটি আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন অত্যাধুনিক একাডেমিতে পরিণত করার জন্য আওয়ামী লীগ সরকার কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী এ সময় জাতির পিতার ভাষণের উদ্ধৃতি- ‘বিশ্বের মানুষ একদিন এই মিলিটারি একাডেমিকে দেখতে আসবে’ উল্লেখ করেন এবং আজকে সত্যিই সারাবিশ্বের মানুষ আমাদের মিলিটারি একাডেমি দেখতে আসছে এবং তারা এটার প্রশংসাও করছে।

শেখ হাসিনা বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি প্রসঙ্গে বলেন, উন্নত প্রশিক্ষণ প্রদান ও সুযোগ্য নেতৃত্ব তৈরিতে বঙ্গবন্ধু যে মিলিটারি একাডেমির স্বপ্ন দেখেছিলেন, তারই বাস্তবায়িত রূপ আজকের এই একাডেমি। এখানে ইতোমধ্যে প্রশিক্ষণের সকল প্রকার অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত ‘বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্স’সহ বিবিধ অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়া ৩ বছর মেয়াদী প্রশিক্ষণের পাশাপাশি ৪ বছর মেয়াদী অনার্স কোর্স নিঃসন্দেহে সামরিক ও বৈশ্বিক জ্ঞানের মিশ্রণে সামরিক পেশাগত উৎকর্ষতার শিখরে পৌঁছাতে সহায়ক হবে বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে আমাদের সেনাসদস্যরা যাতে তাল মিলিয়ে চলতে পারে সেটা নিশ্চিত করাই তাঁর সরকারের অন্যতম লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পরবর্তীকালেও এই শিক্ষাটা তাঁদের জীবন গড়ার ক্ষেত্রে কাজে দেবে। তিন বছর মেয়াদী কঠোর প্রশিক্ষণ শেষ করে আজ (বৃহস্পতিবার) ৭৯তম বিএমএ দীর্ঘমেয়াদী কোর্সে বাংলাদেশসহ বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র ফিলিস্তিন ও শ্রীলঙ্কার প্রশিক্ষণার্থীরা ‘লেফটেন্যান্ট’ হিসেবে কমিশন লাভ করতে যাচ্ছে। এই শুভক্ষণে আমি সকল নবীন অফিসারকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাই।

প্রধানমন্ত্রী পাসিং আউট ক্যাডেটদের উদ্দেশে আরও বলেন, আজকের দিনটি তোমাদের জন্য অত্যন্ত আনন্দের এবং খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দীর্ঘ প্রশিক্ষণের পর কাক্সিক্ষত কমিশন প্রাপ্তির মাধ্যমে তোমরা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একজন গর্বিত অফিসার হিসেবে যোগদান করতে যাচ্ছ। তোমাদের দেশকে ভালবাসতে হবে এবং দেশের জন্য কর্তব্য পালন করতে হবে। কারণ, তোমরা যে শপথ গ্রহণ করেছ, এই শপথ গ্রহণের মধ্যদিয়ে তোমাদের এদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য বিরাট দায়িত্ব কাঁধে পড়ল। সেকথা সব সময় মনে রাখতে হবে।

কমিশনপ্রাপ্ত নবীন ক্যাডেটদের উদ্দেশ করে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, তোমরা এদেশের সন্তান। এদেশের গ্রাম, গঞ্জে, শহরে তোমাদের মা-বাবাসহ সকলে ছড়িয়ে আছেন। কাজেই, দেশের উন্নতি হলে সকলেরই উন্নতি হবে। দেশ শান্তিতে থাকলে সবাই শান্তিতে থাকবে। সে কথাটা সবসময় মনে রেখে এ দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের জীবন-মান উন্নয়নের জন্য যথাযথভাবে অবদান রেখে যাবে, সেটাই আমরা চাই। তিনি ক্যাডেটদের প্রতি শুভ কামনা জানিয়ে বলেন, ‘তোমরা নেতৃত্বে সফল হও, আরও দক্ষ হও, সুশিক্ষিত হও- দেশ ও জাতি তোমাদের জন্য সবসময় গর্ব অনুভব করবে- সেটাই আমি চাই।’

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT