ঢাকা, বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১লা বৈশাখ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

দুই শত প্রতিষ্ঠানের তথ্য চুরি করেছে হ্যাকাররা

প্রকাশিত : 08:38 AM, 3 April 2021 Saturday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

ডিজিটাল যুগে সাইবার হামলা একটি আতঙ্ক। এর মাধ্যমে তথ্য চুরি করে হ্যাকাররা সুযোগ বুঝে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তিকে ব্ল্যাকমেল করে। কখনও কখনও বড় অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নেয়। এবার দেশের সরকারী ও বেসরকারী ২০০-এর অধিক প্রতিষ্ঠান থেকে তথ্য চুরি করেছে হ্যাকাররা। গত বৃহস্পতিবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য দিয়েছে সরকারী প্রতিষ্ঠান বিডি সার্ট। প্রতিবেদনে বলা হয়, মাইক্রোসফট এক্সচেঞ্জ সার্ভারের মাধ্যমে স্পর্শকাতর এসব প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে হামলা করেছে হাফনাম হ্যাকারস গ্রুপ। তথ্য প্রযুক্তিবিদরা বলছেন, মাইক্রোসফটের এই সেবাটি নিরাপত্তার দিক থেকে খুবই দুর্বল হওয়ায় সুযোগ নিয়েছে হ্যাকাররা।

এবার যেসব প্রতিষ্ঠানে সাইবার হামলা হয়েছে এর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের নাম। এর আগেও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে ৮ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার চুরি হয়। এছাড়া বিটিআরসি, গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত নন ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান লঙ্কাবাংলা ফাইন্যান্স, আইটি খাতের প্রতিষ্ঠান অগ্নি সিস্টেমস থেকেও সাইবার আক্রমণের মাধ্যমে তথ্য চুরির ঘটনা ঘটেছে। সাইবার থ্রেড রিপোর্টে বলা হয়েছে, দেশের যেসব প্রতিষ্ঠান উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমস বিশেষ করে মাইক্রোসফট এক্সচেঞ্জ সার্ভার (Windows Operating Systems specifically Microsoft Exchange Server) ব্যবহার করছে হ্যাকাররা তাদের আক্রমণ করেছে। হাফনিয়াম (HAFNIUM) হ্যাকররা এসব প্রতিষ্ঠান আক্রমণ করেছে। রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, দেশে সরকারী-বেসরকারী ১০টি খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোকে আক্রমণের টার্গেট করেছে হ্যাকাররা। খাতগুলো হচ্ছে ব্যাংকিং- আর্থিক প্রতিষ্ঠান, সরকারী প্রতিষ্ঠান, হেলথ কেয়ার, আইন, ডিফেন্স, ইন্ডাস্ট্রিজ, এরোস্পেস, বিজ্ঞান শিক্ষা ও কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়, জ্বালানি এবং অলাভজনক প্রতিষ্ঠান।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের (বিসিসি) পরিচালক (সিএ অপারেশন ও নিরাপত্তা) ও (ডাটা সেন্টার) তারেক এম বরকতউল্লাহ বলেন, এবারের সাইবার আক্রমণে বড় কোন ক্ষতি করতে পারেনি। তবে তাদের উদ্দেশ্য ছিল তথ্য চুরি করা। আর তথ্য চুরি করার মাধ্যমে তারা ভবিষ্যতে কোন না কোন সময় প্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্ল্যাকমেল করতে পারবে। এছাড়া তারা তেমন কিছু করতে পারবে না। তিনি আরও বলেন, যেসব প্রতিষ্ঠান আক্রমণের শিকার হয়েছে তারা কিভাবে সংক্রমণটা পরিষ্কার করবে তার কৌশল রিপোর্টে বলে দেয়া হয়েছে। এতে অতিচিন্তার কোন কারণ নেই। সাইবার হামলার খোঁজ পাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ইউরোপ, আমেরিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে লাখ লাখ সার্ভার আক্রমণের শিকার হওয়ার পর আমরা খোঁজ-খবর নিতে শুরু করি। এরপর দেখা গেল দেশের ১০টি খাত লক্ষ্য করে সরকারী-বেসরকারী ২০০ প্রতিষ্ঠানে আক্রমণ করেছে। এ মুহূর্তে হ্যাকিংয়ের শিকার প্রতিষ্ঠাগুলোর করণীয় কী- জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা প্রতিবেদনে উল্লেখ করে দিয়েছি, কিভাবে এই সংক্রমণটা হয়েছে। ভাইরাস কিভাবে মুছে ফেলা বা পরিষ্কার করতে হয়, এর কৌশলও আমরা প্রতিবেদনে দিয়ে দিয়েছি। উৎকণ্ঠার কিছু নেই।’

সাইবার আক্রমণকারী গ্রুপের বিষয়ে তিনি জানান, কেউ বলে চাইনিজ কেউ বলে নর্থ কোরিয়ার হাফনিয়াম হ্যাকারস গ্রুপ কাজটি করেছে। আসলে আমরা এখনও বিস্তারিত তথ্য পাইনি। তবে ইন্টারনেটে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে। প্রতিবেদনটি বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, হামলার শিকার হওয়া প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অন্যতম হলো বাংলাদেশ আর্মি, ট্রাস্ট ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড, গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেড, বিটিআরসি, লঙ্কাবাংলাসহ দুই শতাধিক প্রতিষ্ঠান। সাইবার আক্রমণ হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের অবস্থান জানতে চাইলে নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, রিপোর্টটি সম্পর্কে ভালভাবে জেনে বলতে হবে। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে (নিউইয়র্ক ফেড) রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের হিসাব থেকে ৮ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার চুরি হয়। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে সাইবার হামলা হয়েছে সরকারী-বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT