ঢাকা, মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

ডাকাতদের ডিজিটাল নেটওয়ার্ক!

প্রকাশিত : 08:34 AM, 8 November 2020 Sunday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

এক সময় অপরাধীরা ওয়াকিটকিতে যোগাযোগ করত। এখন তারা আরও এক ধাপ এগিয়ে ডিজিটাল কোড ব্যবহার করে ছিনতাই ও ডাকাতির মতো ভয়ানক অপরাধ করছে। পেশাদার পুলিশের মতোই অত্যন্ত সুকৌশলে বেশ দক্ষতার সঙ্গেই তারা নিজেদের মধ্যে তথ্য আদান-প্রদান করত। কিন্তু র‌্যাবের নজরদারি যে তাদের চেয়েও কার্যকর সেটা তাদের ধারণায় ছিল না। তাই ধরা পড়ার পর তারা এটা বোকামি করেছে বলে স্বীকারও করেছে। সম্প্রতি সাভারের আমিনবাজারে এক ইতালি প্রবাসীকে এলোপাতাড়ি গুলি করে অর্থ লুটের ঘটনায় ধৃত তিন ডাকাতের কাছ থেকে এ ধরনের তথ্য পেয়েছে র‌্যাব। আটককৃতরা হলো- মোস্তাফিজুর রহমান (৩৮), নাসির (৩৮) ও আবদুল বারেক সিকদার (৪৫)। তাদের কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে একটি প্রাইভেটকার, দুটি বিদেশী পিস্তল, একটি রিভলবার, ১২ রাউন্ড গুলি, একটি ছুরি, দুইটি লোহার পাইপ ও নগদ ৫০ হাজার টাকা। আটককৃতদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইন ও ডাকাতির প্রস্তুতি ধারায় দুটি মামলা হয়েছে। ডাকাত চক্রে জড়িত অন্যদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

র‌্যাব জানিয়েছে, আটককৃতরা ভয়ঙ্কর ডাকাত। নিজেদের ডাকাত দলকে তারা ডাকে ডিজিটাল গ্রুপ বা ‘কোম্পানি’ নামে। নগদ টাকা ও ব্যাংককেন্দ্রিক ডাকাতির জন্য ‘কোম্পানি’র রয়েছে নিজস্ব সোর্স বা তথ্যদাতা। তাদের দেয়া তথ্যেই ডাকাতির দিনক্ষণ নির্ধারিত হতো। ডাকাতি শেষে নিরাপদ পথে সশস্ত্র এই ডাকাতরা নিজস্ব গাড়ি ও মোটরসাইকেলে করে নির্বিঘেœ পালিয়ে যেত। শুধু তাই নয়, আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তিকে ফাঁকি দিতে নিজেদের যোগাযোগের জন্য ব্যবহার করত নির্দিষ্ট মুঠোফোন ও নম্বর। ডাকাতি শেষে তাদের মুঠোফোন, সিমকার্ড এবং ডাকাতির সময় ব্যবহৃত জামা-কাপড় পুড়িয়ে ফেলা হতো।

রাজধানীর কাওরান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মোঃ মোজাম্মেল হক। তিনি জানান, গত ২৮ অক্টোবর সকালে ইতালি প্রবাসী মোঃ আমানুল্লাহ (৪০) সস্ত্রীক আমিনবাজারের একটি ব্যাংক থেকে টাকা তুলে বাড়ি ফেরার পথে ভাকুর্তা লোহার ব্রিজের কাছে ডাকাতদের কবলে পড়েন। ৩টি মোটরসাইকেল ও একটি প্রাইভেটকারে এসে ডাকাতরা এই দম্পতিকে ঘিরে ধরে। তাদের গাড়ি থামিয়ে এলোপাতাড়ি গুলি করে ৫ লাখ ৭০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্রটিকে ধরতে মাঠে নামে র‌্যাব-৪। তদন্তের শুরু থেকেই ব্যাংকের সিসিটিভি ফুটেজ থেকে ক্যাপ পরা এক ব্যক্তিকে শনাক্ত করা হয়? এরই সূত্র ধরে শুক্রবার মাঝরাতে ডাকাত দলের ওই তিন সদস্যকে আটক করা হয়। তবে এ সময় তাদের সঙ্গে আরও ৬-৭ ডাকাত পালিয়ে যায়। এই ডাকাত দলের প্রত্যেক সদস্যের আলাদা ছদ্মনাম রয়েছে। দলটির অন্যতম সদস্য ব্যাংকে সেদিন ক্যাপ পরা অবস্থায় ছিল। আটক বারেক সিকদার ডাকাতদের অস্ত্র ও ছিনতাইয়ের টাকা বহন করার কাজে ব্যবহৃত গাড়ির চালক। তারা ডাকাতির সময় নির্দিষ্ট মুঠোফোন নম্বর ব্যবহার করত। ডাকাতি শেষে দলটির সদস্যরা আগে থেকে ঠিক করে রাখা নির্জন জায়গায় দেখা করে সিম কার্ড ও ব্যবহৃত জামা-কাপড় পুড়িয়ে ফেলত। এরপর কয়েকদিনের জন্য সবাই গা-ঢাকা দিয়ে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করত। পরিস্থিতি বুঝে পরবর্তীতে মূল গায়েনের পরিকল্পনা অনুযায়ী নতুন কোন জায়গায় ডাকাতি করতো তারা।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিন ডাকাতই জানায়, ব্যাংকের টাকা উত্তোলনকারীদের দিকে তীক্ষ্ম নজর রেখে বাইরে মোটরসাইকেলে ওঁৎ পেতে থাকা নাসিরসহ তার অন্যান্য সহযোগীদের তথ্যটি জানায়। এই ডাকাতরা প্রথমে তথ্য সংগ্রহ করত। ১০ সদস্যের এই দলটির মূলহোতার রয়েছে নিজস্ব সোর্স। যাদের মূল কাজ হচ্ছে কে কখন ব্যাংকে টাকা উত্তোলন করবে সে তথ্য সংগ্রহ করা। সোর্স থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ডাকাতির দিন, সময়, পরিকল্পনা করে প্রস্তুতি নেয়া হতো। ঘটনার ২-১ দিন আগে থেকে সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন, পর্যবেক্ষণ ও রাস্তাঘাটের পরিস্থিতি সম্পর্কে জেনে ডাকাতির পর পালিয়ে যাওয়ার নিরাপদ পথ ঠিক করত কয়েকজন সদস্য। এই ডাকাতদের প্রত্যেকের রয়েছে আলাদা দায়িত্ব। অস্ত্রসহ গাড়ি বহন, ব্যাংক থেকে টাকা তোলার খবর বাইরে থাকা সদস্যদের জানানো, মোটরসাইকেলে করে হানা দেয়া ইত্যাদি কাজ সুনির্দিষ্টভাবে ভাগ করে দেয়া ছিল। এদিকে ডাকাতদের অপর সদস্যদের গ্র্রেফতারে রাজধানীতে র‌্যারেব অভিযান চলছে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত ডিআইজি মোঃ মোজাম্মেল হক।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT