ঢাকা, মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

জয়পুরহাটে বাস-ট্রেন সংঘর্ষে নিহত ১২

প্রকাশিত : 08:18 AM, 20 December 2020 Sunday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

জয়পুরহাট-হিলি সড়কের পুরানাপৈল রেল ক্রসিংয়ে বাস ও ট্রেনের সংঘর্ষে শনিবার ১২ জন নিহত হয়েছেন। রাজশাহীগামী উত্তরা এক্সপ্রেস ও হিলিগামী একটি লোকাল বাসের সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই বাসের ১০ যাত্রী নিহত এবং হাসপাতালে নেয়ার পথে আরও দুজন মারা যান। পাঁচজন গুরুতর আহত হওয়ায় তাদের বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়। নিহত ১২ জনের মধ্যে ১১ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। নিহতরা হলেন- জয়পুরহাটের পাঁচবিবির আটুল গ্রামের আলতাফ আলীর দুই ছেলে সরোয়ার হোসেন বাবু (৩৫) ও আরিফুর রহমান রাব্বি (২০), পাঁচবিবির কদমতলী গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে বাসের কন্ডাক্টর জিয়া (৬০), বাসের হেলপার রেজাউল করিম (৩৫), পিতা নিশী মন্ডল, গ্রাম চিত্রাপাড়া, জয়পুরহাট সদও, সাজু (২৭) পিতা কাজী নজরুল ইসলাম, গ্রাম জামালগঞ্জ, রমজান আলী (৪০) পিতা মানিক হোসেন, গ্রাম হিচমী, জয়পুরহাট সদও, বাবুল (৪৫) পিতা সোনা মিয়া, গ্রাম বিজয়কান্দি, রানীনগর, নওগাঁ, আব্দুল লতিফ (৩৫) পিতা শরীফ উদ্দিন, গ্রাম দোগাছী কুটিবাড়ি, জয়পুরহাট সদও, জুলহাস (৬০) পিতা শুকুর আলী গ্রাম মাটিকাটা, ভুয়াপুর, টাঙ্গাইল, মঞ্জুরুল (২৮) পিতা মোশারফ হোসেন, আটাপাড়া, পাঁচবিবি, সুমন (৩২) পিতা মংলা, গ্রাম ইটাখোলা, ক্ষেতলাল। এদিকে এই ঘটনায় জেলা প্রশাসক মোঃ শরিফুল ইসলাম অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রেজা হাসানকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। এছাড়া রেল বিভাগও একটি তদন্ত কমিটি করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী, পুলিশ ও ফায়ার ব্রিগেডসহ বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, জয়পুরহাট শহরের নতুন বাটার মোড় থেকে সকাল ছয়টা ৪২ মিনিটে জয়পুরহাট-হিলি সড়কে চলাচলরত বাঁধন পরিবহন হিলির উদ্দেশে ছেড়ে যায়। ছয়টা ৫৫ মিনিটে বাসটি পুরানাপৈলে রেলক্রসিং(রেলগেট খোলা থাকায়) পার হওয়ার সময় পার্বতীপুর থেকে রাজশাহীগামী উত্তরা এক্সপ্রেসের সঙ্গে প্রচন্ড গতিতে ধাক্কা খায়। ফলে বাসটি ভেঙ্গে দুমড়েমুচড়ে যায়। দুর্ঘটনার বিকট শব্দে এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে ছুটে যায়।

তারা গিয়ে ঘটনাস্থল থেকে ১০ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করে। ড্রাইভার, হেলপারসহ আহত পাঁচজনকে জয়পুরহাট ফায়ার ব্রিগেড, জয়পুরহাট সদর থানা পুলিশ উদ্ধার করে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে পাঠায়। হাসপাতালে ভর্তির পর পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের সকাল ১০টার পরে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়। পথেই বাসের কন্ডাক্টর জিয়া এবং যাত্রী আব্দুল লতিফ মারা যান। লতিফ পেশায় রাজমিস্ত্রি। বাসের ড্রাইভার মামুনসহ আরও তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

দুর্ঘটনার পর পার্বতীপুর-শান্তাহার লাইনে রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। দুর্ঘটনার ফলে ঢাকা-চিলাহাটিগামী নীলসাগর এক্সপ্রেস, রাজশাহীগামী বরেন্দ্র এক্সপ্রেস, চিলাহাটিগামী তিতুমির এক্সপ্রেস, খুলনাগামী রূপসা এক্সপ্রেস ট্রেন জয়পুরহাট এবং হিলি এলাকায় আটকা পড়ে। ফলে দুর্ঘটনা কবলিত উত্তরা এক্সপ্রেসসহ পাঁচটি ট্রেনের হাজার হাজার যাত্রী চরম দুর্ভোগে পড়ে। দুর্ঘটনার পর পার্বতীপুর এবং ঈশ্বরদী থেকে দুটি উদ্ধারকারী ট্রেন দুূর্ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধারকার্য চালায়। দুর্ঘটনার সাতঘণ্টা পর পাবর্তীপুর-শান্তাহার লাইনে ট্রেন চলাচল শুরু হয়। জয়পুরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য শামছুল আলম দুদু, জেলা প্রশাসক মোঃ শরিফুল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিল্টন চন্দ্র রায়, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আরিফুর রহমান রকেট, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাকির হোসেন, পৌরসভার মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সম্পাদক গোলাম হক্কানি, পুরানাপৈল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম সৈকতসহ বিভিন্ন কর্মকর্তা এবং নেতৃবৃন্দ হাসপাতাল ও ঘটনাস্থলে যান এবং আহতদের খোঁজখবর নেন এবং নিহতদের পরিবারকে সান্ত¦না দেন।

এদিকে এই ঘটনায় জেলা প্রশাসক মোঃ শরিফুল ইসলাম অতিরিক্ত জেলা ম্যজিস্ট্রেট রেজা হাসানকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। কমিটিতে পাঁচবিবি সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগের সহকারী প্রকৌশলীকে সদস্য করা হয়। কমিটিকে তিন কর্মদিবসে তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

অপরদিকে রেল বিভাগ পাকশী রেল ডিভিশনের বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) নাসির উদ্দিনকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। কমিটির সদস্যরা হলেন পাকশী বিভাগীয় প্রকৌশলী-২ আব্দুর রহিম, পাকশী বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (লোকো) আশিষ কুমার মন্ডল, পাকশী বিভাগীয় মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ সাকিল আহম্মেদ। কমিটিকে পাঁচ কর্মদিবসে তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত (নিহত ও আহত) পরিবার প্রতি জয়পুরহাট জেলা প্রশাসন থেকে ২০ হাজার নগদ টাকা এবং জয়পুরহাট পৌরসভার মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন। এছাড়াও পৌর মেয়র ১২টি লাশের দাফনকাফন ও আহতদের চিকিৎসার জন্য এ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করেন। এদিকে পুরানাপৈল রেল ক্রসিংয়ে দায়িত্বরত গেটম্যান নয়ন রহমান পলাতক রয়েছে। কর্তব্যে অবহেলার জন্য তাকে প্রাথমিকভাবে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

স্টাফ রিপোর্টার ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রেনের ধাক্কায় মাদ্রাসা পড়ুয়া এক কিশোর নিহত হয়েছে। শনিবার বিকেলে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট রেলপথের ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের ভাদুঘর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত হুজায়ফা (১৩) ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার বাসুদেব গ্রামের মাওলানা ইয়াছিন মিয়ার ছেলে ও স্থানীয় একটি মাদ্রাসার ছাত্র। রেলওয়ে পুলিশের ব্রাহ্মণবাড়িয়া ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক সেতাফুর রহমান জানান, ওই কিশোর রেললাইন ধরে হাঁটার সময় লাইনে ট্রেন চলে আসলে সে পাশের লাইনে চলে যায়। এ সময় পাশের লাইন দিয়েও একই সময়ে পেছন দিক থেকে আরেকটি ট্রেন চলে আসে এবং ওই কিশোরকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়। পরে স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে রেল পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে রাতে তার মরদেহ উদ্ধার করে এবং ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

পঞ্চগড়ে যুবদল নেতা ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় দেবীগঞ্জ উপজেলা যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক মঞ্জুর মোর্শেদ আলম রাজু (৫০) নিহত হয়েছেন। শুক্রবার রাতে সাকোয়া ইউনিয়নের শিমুলতলী এলাকায় বোদা-দেবীগঞ্জ এশিয়ান হাইওয়েতে দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। তার বাড়ি দেবীগঞ্জ পৌর এলাকার বাবুপাড়ায়। তিনি ওই এলাকার মৃত শফিউল আলমের ছেলে এবং দেবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোফাখখারুল ইসলাম বাবুর ছোট ভাই।

জানা যায়, যুবদল নেতা রাজু শুক্রবার রাতে তার ব্যক্তিগত কাজে মোটর সাইকেলযোগে দেবীগঞ্জ থেকে বোদা উপজেলা শহরে আসছিলেন। এসময় সাকোয়া ইউনিয়নের শিমুলতলী এলাকায় রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা একটি বালুবাহী ট্রাকের পেছনে সজোরে ধাক্কা খেয়ে গুরুতর আহত হন। বোদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

ফকিরহাটে প্রকৌশলী ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, বাগেরহাটে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত প্রকৌশলী রঘুনাথ মিত্র (৫০) শুক্রবার গভীর রাতে মারা গেছেন। ফকিরহাটের পিলজংয়ের বৈলতলী গ্রামের রণজিৎ মিত্রের ছেলে প্রকৌশলী রঘুনাথ মিত্র গত ১৩ ডিসেম্বর খুলনা-মাওয়া মহাসড়কের সাধের বটতলায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে খুমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

বাউফলে পুলিশ কর্মকর্তা ॥ নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, পটুয়াখালীর বাউফলে সড়ক দুর্ঘটনায় মোঃ এনায়েত হোসেন (৪৫) নামে এক পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। শুক্রবার রাতে বগা-বাউফল-দশমিনা সড়কের শাপলাখালী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এনায়েত ঝালকাঠীর নলছিটি থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার বাড়ি দশমিনা উপজেলার বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের গছানি গ্রামে।

জানা গেছে, এএসআই মোঃ এনায়েত হোসেন নলছিটি থেকে মোটরসাইকেল চালিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন। ওই দিন রাত পৌনে আটটার দিকে বগা-বাউফল-দশমিনা সড়কের শাপলাখালী এলাকায় মোটরসাইকেলটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে পড়ে যায়। ওই সময় মোটরসাইকেল থেকে পড়ে গিয়ে তিনি অচেতন হয়ে পড়েন। পরে তাঁকে উদ্ধার করে বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়। এরপর জরুরী বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বগুড়ায় যুবক ॥ বগুড়া শহরতলির ফুলদীঘি এলাকায় শুক্রবার রাতে মোটরবাইকের ধাক্কায় এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। তার নাম সাগর (৪৫)। তিনি ঝিনাইদহের কালিগঞ্জের বারোবাজার মদনপুর গ্রামের মোশাররফ হোসেনের ছেলে। পুলিশ জানায়, সাগর ট্রাকে করে বগুড়ার ফুলদীঘিতে মালামাল নিতে আসে। রাতে ট্রাকের দরোজা খুলে নামার সময় এক ব্যক্তি মোটর সাইকেলযোগে যাওয়ার সময় সাগরের ধাক্কা লাগে এবং তিনি ছিটকে পড়েন। দ্রুত বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নেয়ার পর তার মৃত্যু হয়। মোটরসাইকেল চালক হোসাইন (২২) গুরুতর আহত।

যশোরে অজ্ঞাত কিশোর ॥ যশোর-মাগুরা সড়কের হুদোরাজাপুর এলাকায় যাত্রীবাহী বাস উল্টে অজ্ঞাত (১৭) এক কিশোর নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অন্তত ১০জন; তাদের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শনিবার দুপুর আড়াইটারদিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

যশোর ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন মাস্টার শহিদুল ইসলাম জানান, দুর্ঘটনাকবলিত বাসটি মাগুরা থেকে যশোরের উদ্দেশে যাচ্ছিল। দুপুর আড়াইটার দিকে বাসটি যশোর সদর উপজেলার হুদোরাজাপুর পৌঁছলে অপর একটি গাড়িকে পাশ দিতে গিয়ে রাস্তার নিচে নেমে যায়। এরপর চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে বাসটি উল্টে রাস্তার পাশে পড়ে যায়। স্থানীয়রা দ্রুত উদ্ধার কাজে অংশ নেন। পরে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরাও উদ্ধার কাজে অংশ নেয়।

তিনি আরও জানান, বাসটিতে ৩০/৩৫ যাত্রী ছিল। এর মধ্যে ১১জনকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এছাড়া অনেকে সামান্য আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক এনাম উদ্দিন জানান, দুর্ঘটনায় আহত ১১ জনের মধ্যে একজন হাসপাতালে আনার পথেই মারা গেছেন। অন্যদের ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তবে তাদের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন।

গোপালগঞ্জ ॥ গোপালগঞ্জে বাসের নিচে চাপা পড়ে শাহারুল আলম ইরান (৩০) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত ও ৯ বাসযাত্রী আহত হয়েছেন। ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার তুতবাটি এলাকায় শনিবার বিকেল সোয়া ৩টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ইরান সদর উপজেলার সুলতানশাহী গ্রামের নূর জালাল মজুমদারের ছেলে।

জানা গেছে, গোপালগঞ্জ শহর থেকে মোটরসাইকেলে সুলতানশাহী গ্রামে ফিরছিলেন ইরান ও তার এক আত্মীয়। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা ইমাদ পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস মোটরসাইকেলটিকে চাপা দিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রস্তার পাশে খাদে পড়ে যায়। এতে মোটরসাইকেল ও বাসের ১০ যাত্রী আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে এনে চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে বিকেল ৫টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শাহারুল আলম ইরান মারা যান। গুরুতর আহত ৯ জন গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT