ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর ২০২১, ৬ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

চট্টগ্রামকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন খুলনা

প্রকাশিত : 11:14 AM, 19 December 2020 Saturday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

বঙ্গবন্ধু টি২০ কাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে জেমকন খুলনা। শুক্রবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালে তারা ৫ রানে হারিয়ে দেয় গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামকে। আগে ব্যাট করে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ক্যারিয়ারসেরা ৭০ রানের হার না মানা ইনিংসে ৭ উইকেটে ১৫৫ রান তোলে খুলনা। জবাবে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৫০ রান করতে সক্ষম হয় চট্টগ্রাম। এই প্রথম কোন টি২০ টুর্নামেন্টে শিরোপা জিতল খুলনার কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি এবং কোচ হিসেবে মিজানুর রহমান বাবুল ও অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ। লীগপর্বে দুইবার চট্টগ্রামের কাছে হেরে খুলনা প্রথম কোয়ালিফায়ারে ৪৭ রানে চট্টগ্রামকে হারিয়ে ফাইনালেও জিতল। ২০১৩ সালের বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) টি২০ আসরে চিটাগং কিংসকে নেতৃত্ব দিয়ে ফাইনালে তুলেছিলেন মাহমুদুল্লাহ। কিন্তু শিরোপা জিততে পারেননি। সম্প্রতিই অধিনায়ক হিসেবে তার ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয়েছে। মাত্র কিছুদিন আগে বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ ওয়ানডে সিরিজে তার নেতৃত্বে শিরোপা জেতে মাহমুদুল্লাহ একাদশ। টি২০ ফরমেটেও সেই সাফল্য তুলে আনলেন এবার।

টস হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নেমেই বিপদে পড়ে খুলনা। প্রথম বলেই সাজঘরে ফেরেন ফর্মে থাকা ওপেনার জহুরুল ইসলাম অমি (০)। তৃতীয় ওভারে আরেক অভিজ্ঞ ইমরুল কায়েসকেও (৮) সাজঘরে ফিরিয়ে চট্টগ্রামের নায়ক বনে যান অফস্পিনার নাহিদুল ইসলাম। তার জোড়া ধাক্কার পর সপ্তম ওভারে আউট হয়ে যান দেখে শুনে খেলতে থাকা আরেক ওপেনার জাকির হাসান। ২০ বলে ৩ চার, ১ ছক্কায় ২৫ রান করেন তিনি। দলীয় ৪৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া দলটিকে টেনে তোলেন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ ও আরিফুল হক ৪০ রানের একটি জুটি গড়ে। ২৩ বলে মাত্র ২১ রান করে বিদায় নেন আরিফুল। এরপর একাই লড়াই চালিয়ে যান রিয়াদ, টুর্নামেন্টে নিজের প্রথম অর্ধশতক হাঁকান তিনি ৩৯তম বলে। এরপরও থামেননি, শেষ মুহূর্তে একটি ক্যাচের সুযোগ দিয়েও বেঁচে গিয়েছিলেন। সেই সুযোগে খেলেছেন ক্যারিয়ারসেরা ৭০ রানের হার না মানা ইনিংস। ৪৮ বলে ৮ চার, ২ ছক্কায় ৭০ রানে অপরাজিত থাকেন রিয়াদ। সৌম্য সরকারের করা শেষ ওভারে ১৭ রান তুলে নেন তিনি। ফলে ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৫৫ রানের লড়াকু সংগ্রহ পায় খুলনা। ২ উইকেট করে নেন শরিফুল ইসলাম ও নাহিদুল।

জবাব দিতে নেমে দুই ইনফর্ম লিটন দাস ও সৌম্যর ব্যাটে দারুণ সূচনা পায় চট্টগ্রাম। কিন্তু ৩.৩ ওভারে দলীয় ২৬ রানেই সৌম্য (১০ বলে ১২) শুভাগত হোমের শিকার হন। অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুনও (৭) দ্রুত সাজঘরে ফেরেন। এমনকি লিটন এ ম্যাচে বড় ইনিংস খেলতে ব্যর্থ হন। ২৩ বলে ২৩ করার পর রানআউট হয়ে যান তিনি। এরপর সৈকত আলী ও শামসুর রহমান ৪৫ রানের জুটি গড়ে চট্টগ্রামকে জয়ের আশা দেখান। মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও সৈকত আলী চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। সৈকত ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি হাঁকান ৪১ বলে। শেষ দুই ওভার ২৯ রান প্রয়োজন ছিল চট্টগ্রামের। হাসান মাহমুদের সেই ওভারে ১৩ রান নিতে পারেন মোসাদ্দেক ও সৈকত। শেষ ওভারে ১৬ রান দরকার, প্রথম দুই বলে ৩ রান আসলেও তৃতীয় বলে শহীদুলকে তুলে মারতে গিয়ে আউট হয়ে যান ১৪ বলে ১৯ রান করা মোসাদ্দেক। পরের বলেই আবার ৪৫ বলে ৪ ছক্কায় ৫৩ রান করা সৈকতকে বোল্ড করে খুলনার জয়কে হাতের মুঠোয় আনেন এ তরুণ উদীয়মান পেসার। শেষ বলে নাহিদুল ছক্কা হাঁকালেও তা চট্টগ্রামকে জয় এনে দিতে পারেনি। ৫ রান কম নিয়েই ৬ উইকেটে ১৫০-এ শেষ হয় তাদের ইনিংস। শহীদুল ২টি উইকেট নেন।

স্কোর ॥ জেমকন খুলনা ইনিংস- ১৫৫/৭; ২০ ওভার (জহুরুল ০, জাকির ২৫, ইমরুল ৮, আরিফুল ২১, মাহমুদুল্লাহ ৭০*, শুভাগত ১৫, শামিম ০, মাশরাফি ৫, শহীদুল ১*; নাহিদুল ২/১৯, শরিফুল ২/৩৩, মোসাদ্দেক ১/২০, মুস্তাফিজ ১/২৪)।

গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম ইনিংস- ১৫০/৬; ২০ ওভার (লিটন ২৩, সৌম্য ১২, মিঠুন ৭, সৈকত ৫৩, শামসুর ২৩, মোসাদ্দেক ১৯, নাহিদুল ৬*, নাদিফ ১*; শহীদুল ২/৩৩, শুভাগত ১/৮, আল-আমিন ১/১৯)।

ফল ॥ খুলনা ৫ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা ॥ মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (খুলনা)। টুর্নামেন্ট সেরা ॥ মুস্তাফিজুর রহমান (চট্টগ্রাম)। টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ন ॥ খুলনা।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT