ঢাকা, মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১, ৩০শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

কালশী বস্তিতে ফের আগুনে দেড় শ’ ঘর পুড়ে ছাই

প্রকাশিত : 08:20 AM, 22 December 2020 Tuesday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

রাজধানীর মিরপুরের কালশী বস্তিতে আবারও ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগুনে অন্তত দেড় শতাধিক আধা পাকা বস্তি ঘর পুড়ে গেছে। এতে বস্তির বাসিন্দা পাঁচ শতাধিক নিম্ন আয়ের মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়েছেন। এক মাসের ব্যবধানে দ্বিতীয়বার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটল।

ক্ষতিগ্রস্ত প্রতি পরিবারকে পাঁচ হাজার টাকা করে অনুদান দেয়া হচ্ছে। এছাড়া স্থানীয় আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ইলিয়াছ মোল্লা ও সিটি কর্পোরেশনের তরফ থেকে গৃহহীনদের জন্য খাবার ও ভ্রাম্যমাণ পায়খানা স্থাপন করা হয়েছে। শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। বস্তিতে চুরি ঠেকাতে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে সার্চলাইট লাগানো হয়েছে। মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ।

সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে মিরপুর-১১ নম্বরের তালতলা নাভানা টাওয়ারের পেছনের খিচুড়ি পট্টি হিসেবে পরিচিত বস্তিটিতে আগুন লাগে। সরকারী জায়গার ওপর বস্তিটি গড়ে উঠেছে। বস্তিতে প্রায় হাজারখানেক ঝুঁপড়ি ঘর রয়েছে। এসব ঘরের নিয়ন্ত্রণ রয়েছে বস্তিকেন্দ্রিক স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তির হাতে।

ফায়ার সার্ভিসের কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষ সূত্রে জানা গেছে, অগ্নিকান্ডের খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ছয়টি ইউনিট সেখানে যায়। টানা দেড় ঘণ্টা চেষ্টায় বেলা তিনটার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। বিকেল চারটা নাগাদ আগুন পুরোপুরি নির্বাপণ করা হয়। তবে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। প্রায় দেড়শ’ কাঠ, বাঁশ ও টিনের তৈরি আধা পাকা ঘর পুড়ে গেছে। তবে কোন হতাহাতের ঘটনা ঘটেনি। বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে অগ্নিকান্ডের ঘটনাটি ঘটতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

স্থানীয়দের ধারণা, আগুনে অন্তত দুই শতাধিক ঘর পুড়ে গেছে। তবে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। তবে পল্লবী মডেল থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী মিয়া জনকণ্ঠকে বলেন, আগুন অন্তত দেড় শতাধিক বস্তিঘর পুড়ে গেছে। গৃহহীনদের থাকার ও খাবার ব্যবস্থা করেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ইলিয়াছ মোল্লা, কাউন্সিলর ও ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের দায়িত্বশীলরা।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মিরপুর-২ অঞ্চলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (উপসচিব) এ এস এম সফিউল আজম জনকণ্ঠকে জানান, সিটি কর্পোরেশনের তরফ থেকে তিনি ছাড়াও উর্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ক্ষতিগ্রস্ত পবিরারের তালিকা করা হচ্ছে। সবমিলিয়ে প্রায় শ’খানেক পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। তাদের তালিকা তৈরির কাজ চলছে। ক্ষতিগ্রস্ত প্রতি পরিবারকে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের তরফ থেকে পাঁচ হাজার টাকা করে দেয়া হচ্ছে।

এছাড়া গৃহহীনদের জিনিসপত্র চুরি যাওয়া ঠেকাতে সেখানে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক সার্চ লাইট লাগানো হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ পায়খানা স্থাপন করা হয়েছে। রাতে খোলা আকাশের নিচে থাকা বস্তিবাসীদের মশার হাত থেকে বাঁচাতে মশার ওষুধ ছিটানো হয়েছে। প্রয়োজনে রাতে কয়েল সরবরাহ করা হবে।

ইতোমধ্যেই স্থানীয় আওয়ামী লীগের এমপি ইলিয়াছ মোল্লার সঙ্গে সমন্বয় করে গৃহহীনদের খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। রাতে শীতের হাত থেকে গৃহহীন বস্তিবাসীদের রক্ষা করতে প্রতি পরিবারের জন্য দুটি করে কম্বল দেয়া হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ নবেম্বর মধ্যরাতে কালশী বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকার বাউনিয়াবাঁধের সি ব্লকের পুকুরপাড় বস্তিতে ভয়াবহ অগ্নিোন্ডের ঘটনা ঘটে। তখন বস্তিটির অন্তত তিন শতাধিক ঘর পুড়ে গিয়েছিল।

বস্তিবাসীদের অভিযোগ, এসবে আগুন লাগে না, লাগিয়ে দেয়া হয়। বস্তির সরকারী জায়গা দখল করতেই পরিকল্পিতভাবে আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়। আগুন লাগানোর সঙ্গে স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা ছাড়াও বস্তিকেন্দ্রিক সুবিধাভোগী গোষ্ঠীগুলো জড়িত।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT