মঙ্গলবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

করোনা ইস্যুতে এগিয়ে বাইডেন, ফুরফুরে মেজাজে ট্রাম্প

প্রকাশিত : 11:55 AM, 14 October 2020 Wednesday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

২৩০ বছর ধরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ইতিহাসে রিপাবলিকান বা ডেমোক্র্যাটিক দল দুটির বাইরের প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন মাত্র একবার। তিনি হলেন জর্জ ওয়াশিংটন এবং তিনিই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট। যিনি ছিলেন একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী। সুতরাং রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাটিক পার্টির বাইরের কারও জেতার সম্ভাবনা প্রায় শূন্য। এমন বাস্তবতা জেনেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যাও কম নয়। যদি ৯ অক্টোবর পর্যন্ত হিসাবটার দিকে নজর দেই, তা হলে দেখা যাবে প্রায় ১ হাজার ২১৬ প্রার্থী যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদের জন্য প্রার্থী হতে ফেডারেল নির্বাচন কমিশনে আবেদন করেছেন। এরা কারা এবং নির্বাচনে এরা কতটা সিরিয়াস? এদের একজন পিয়ানো বাদক ও বক্তা। আরেকজন আমেরিকান আদিবাসী ও তথ্যপ্রযুক্তিবিদ। শেষ জন শত কোটি টাকার ক্রিপটোকারেন্সির মালিক। তাদের জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, তাদের নির্বাচনী অঙ্গীকার কী এবং কেন তারা মনে করেন যে, তারা আমেরিকানদের ভোট পাওয়ার উপযুক্ত। জেড সিমন্স একজন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী নারী। তিনি একজন সাবেক বিউটি কুইন। একজন পেশাদার পিয়ানোবাদক, একজন খ্রিস্টান যাজক, মানুষকে উদ্দীপ্ত করার মতো বক্তা, র‌্যাপার এবং একজন মা। জেড সিমন্স নিজেই বলছেন, তিনি একজন ব্যতিক্রমী প্রার্থী এবং এখন সময়টাই ব্যতিক্রমী। তিনি বলছেন, এটি এমন একসময় যখন আমরা গতানুগতিক প্রাত্যহিক জীবনযাপন করতে পারছি না। আমি একজন নাগরিক অধিকার আন্দোলনকর্মীর মেয়ে এবং আমার বাবা আমাকে এ শিক্ষাই দিয়েছিলেন যে, কোথাও অভাব-অবিচার দেখলে তুমি নিজেকে প্রশ্ন করবে, তোমার নিজের কি এ ক্ষেত্রে কিছু করা প্রয়োজন?

করোনা ইস্যুতে এগিয়ে গেলেন বাইডেন ॥ ডোনাল ট্রাম্পের সম্প্রতি করোনায় আক্রান্ত হওয়া এবং এ নিয়ে তার মন্তব্য ও কার্যকলাপে দেশটির জাতীয় নির্বাচনে এগিয়ে যাচ্ছেন জো বাইডেন। বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল ট্রাম্প নাটকীয়ভাবে কোয়ারেন্টাইনের কোন নিয়ম না মেনে মাত্র তিনদিন পর হাসপাতাল থেকে ফিরে এসে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন। করোনা ঈশ্বরের আশীর্বাদ বলে হাস্যরসের সৃষ্টি করেছেন।

সিএনএনসহ বিভিন্ন জরিপে দেখা গেছে, এই সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের কারণে ট্রাম্প অন্তত ২০ শতাংশ মানুষের বিরাগভাজন হয়েছেন। যদিও রিপাবলিকান সমর্থকেরা আগামী ৩ নবেম্বর ট্রাম্প বিজয়ী হবেন বলে আশাবাদী। অন্যদিকে ডেমোক্র্যাটিক দলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী বাইডেন তার প্রতিদ্বন্দ্বীর রোগমুক্তি কামনা করে প্রশংসা কুড়িয়েছেন। রিপাবলিকান দলের নিউইয়র্কের কুইন্স অফিসের অন্যতম সংগঠক লিসা পার্ক। ট্রাম্পের কট্টর ট্রাম্প সমর্থক এই নারী বলেন, বর্তমান এবং আগামীর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প শারীরিক ও মানসিকভাবে প্রচণ্ড শক্তিশালী। তিনি আক্রান্ত হয়েও মানুষের কথা বিবেচনা করে ফিরে এসেছেন হাসপাতাল থেকে। বাইডেন আক্রান্ত হলে আর ফিরতে পারতেন না কোন দিন। ডেমোক্র্যাটিক দলের সমর্থক নিকোলাস কোলম্যান বলেন, যে ব্যক্তি নিজের প্রতিদ্বন্দ্বীর জন্য রোগমুক্তি কামনা করতে পারেন তিনি কতটা মানবিক তা আপনি নিজেই অনুধাবন করতে পারার কথা। করোনা সময়ের প্রথম থেকে বাইডেন সে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়েছেন। এদিকে বাংলাদেশী ট্রাম্প সমর্থক পারমিতা সেন বলেন, বর্ণবাদী আন্দোলনে ব্যাপক সংখ্যক মানুষের মাস্ক ব্যবহার না করা দেশে করোনা সংক্রমণ বেড়েছে। ডেমোক্র্যাট অধ্যুষিত স্টেটগুলোর গবর্নর ও মেয়র দায়িত্বে অবহেলার কারণে করোনা দ্রুত ছড়িয়েছে। অর্থনৈতিক সুবিধা প্রদান থেকে শুরু করে করোনা মোকাবেলায় সম্ভাব্য সব কিছু করেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

ফুরফুরে মেজাজে ট্রম্পের প্রচারকাজ ॥ কোভিড-১৯ আক্রান্ত হওয়ার ১০ দিনের মাথায় নিজেকে করোনামুক্ত হিসেবে দাবি করে আবারও নির্বাচনী প্রচারে নেমেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। রবিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর তার দেহে ইমিউনিটি তৈরি হয়েছে। তার দেহে এখন আর কোভিড-১৯ নেই। সোমবার তিনি ফ্লোরিডায় সমাবেশ করেন। ওরল্যান্ডো রাজ্যের কাছাকাছি স্যানফোর্ড শহরে আয়োজিত বিশাল ওই নির্বাচনী সভায় অধিকাংশ মানুষই মাস্ক পরেননি। সমাবেশে নিজের মাস্ক খুলে ফেলে ট্রাম্প বলেন, আমার বেশ ভাল লাগছে। করোনার পর আমার মধ্যে একটা ফুরফুরে ভাব চলে এসেছে। আমার মনে চাচ্ছে ভক্তদের গিয়ে জড়িয়ে ধরে নিজের উচ্ছ্বাস প্রকাশ করি। ট্রাম্প বলেন, চীনের ভয়ঙ্কর ভাইরাসকে তিনি জয় করেছেন। তিনি মনে করছেন, করোনার বিরুদ্ধে তার শরীর প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে পেরেছে। এর আগে ট্রাম্পের ব্যক্তিগত চিকিৎসক শন কোনলির দাবি, প্রেসিডেন্টের কাছ থেকে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আর কোন ঝুঁকি নেই। তবে ট্রাম্প করোনা নেগেটিভ হয়েছেন এমন কোন তথ্য তিনি দেননি।- খবর ওয়েবের।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT