বুধবার ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

কণ্ঠশিল্পী জনি হত্যার রহস্য উন্মোচন না হওয়ায় ক্ষোভ

প্রকাশিত : 11:25 AM, 10 October 2020 Saturday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

কক্সবাজারে কিশোর কণ্ঠশিল্পী জনি হত্যার রহস্য উন্মোচন না হওয়ায় জনমনে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। কক্সবাজার সদরের ঈদগাও-ঈদগড় হিমছড়ি ঢালায় গুলি ও চাইনিজ কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হত্যায় স্থানীয়দের মনে ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। কণ্ঠশিল্পী কিশোর জনিকে কেন খুন করা হলো, কি দোষ ছিল তার এমন প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে সবার মনে। সবার প্রিয় এই কিশোরের সঙ্গে কার এমন শক্রতা ছিল যে তাকে হত্যার শিকার হতে হলো?

সিএনজিযোগে ঈদগাও থেকে নিজ বাড়ি ঈদগড়ে আসার পথে মুখোশধারী ডাকাত দলের হাতে জনি খুন হল কেন? তা নিয়ে পুরো জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে নানা জল্পনা-কল্পনা চলছে। কলেজ পড়ুয়া জনির কোন শক্র নেই বলে জানিয়েছেন তার বাবা। সবার সঙ্গে ভাল সম্পর্ক ছিল। গানের জগতেও ছিল তার জনপ্রিয়তা। সবার অন্তরে ছিল শিল্পী জনির নাম। নিহত জনির জন্য অনেকেই চোখের জল ফেলছে।

জনির স্বজনরা জানায়, সবসময় হাসিমুখে থাকতো জনি। বিনয়ী জনি অল্প বয়সেই গানের জগতে সুনাম অর্জন করেছিল। এমন একটি ছেলে কেন নির্মম হত্যাকা-ের শিকার হলো তা নিয়ে চলছে কানাঘুষা। এ প্রসঙ্গে ঈদগড় বাজার ব্যবসায়ী জানে আলম জানান, নিহত জনি ডাকাতদের আঙ্কেল বলে সম্বোধন করছিল। ডাকাতরা হয়তো তাদের চিনতে পেরেছে মনে করে তাকে এভাবে হত্যা করেছে। ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম জানান, অপহরণ চেষ্টায় বাধা দেয়ায় তাকে হত্যা করে পালিয়ে গেছে ডাকাতদল। হিন্দু সম্প্রদায়ের অনেকেই জানান, তার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করা হয়েছে। কিশোর কণ্ঠশিল্পী জনিকে যেখানে হত্যা করা হয়েছে সেখানে এখনও রক্তের দাগ রয়েছে।

কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল শুক্রবার সন্ধ্যায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ সময় এমপি কমল বলেছেন, খুনীদের দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ সময় এমপি কমল জনির পরিবারকে দুই লাখ টাকা আর্থিক সহায়তার আশ্বাস দেন।

বৃহস্পতিবার ঈদগাহ-ঈদগড় সড়কে ডাকাতের গুলিতে নিহত হয়েছে তরুণ কণ্ঠশিল্পী জনি দে। ওইদিন সকাল ৮টায় ওই সড়কের ঈদগাহ থিমছড়ি পাত্থার ঝিরি এলাকায় ডাকাতরা তাকে চাইনিজ কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করেছে। নিহত জনি দে (১৮) রামু ঈদগড় নতুন চরপাড়া এলাকার তপন দে’র পুত্র। সে কক্সবাজারে আঞ্চলিক গানের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী জনিরাজ হিসেবে পরিচিত।

জানা গেছে, বুধবার রাতে একটি অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করে সকালে বাড়ি ফিরছিলেন জনি দে। পথিমধ্যে ডাকাতরা তাকে বহনকারী সিএনজি অটোরিক্সা থামানোর চেষ্টা করে। গাড়িটি দ্রুতবেগে চালালে ডাকাতদল গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এতে জনি দে গুলিবিদ্ধ হন। গাড়ি থামানোর পর তাকে কুপিয়ে আহত করে ডাকাতরা। মুমূর্ষু অবস্থায় জনিকে ঈদগাহ এলাকায় বেসরকারী ক্লিনিকে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। জনি দে এবারের এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন। কক্সবাজার সদর মডেল ওসি জানান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও সদর মডেল থানার ওসি তদন্ত ও ঈদগাহ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জসহ পুলিশ দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

জনি হত্যার প্রতিবাদে শুক্রবার বিকেলে মানববন্ধন ও সন্ধ্যায় প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT