ঢাকা, বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১লা বৈশাখ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

এবার নতুন জাতীয় রেকর্ডের ছড়াছড়ি

প্রকাশিত : 09:51 AM, 6 April 2021 Tuesday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

লকডাউনের মধ্যেও দেশব্যাপী বঙ্গবন্ধু নবম বাংলাদেশ গেমসের বিভিন্ন ইভেন্টের খেলা চলছে। আর প্রতিদিনই হচ্ছে নতুন নতুন জাতীয় রেকর্ড। এখন পর্যন্ত চারদিনে ২১ ইভেন্টের মধ্যে ১৩টি নতুন জাতীয় রেকর্ড হয়েছে।

এর মধ্যে সোমবার সবচেয়ে বেশি রেকর্ড হয়েছে সাইক্লিংয়ে। আর্মি স্টেডিয়ামে সাইক্লিংয়ের শেষদিনে পাঁচটি ইভেন্টের সবকটিতেই নতুন জাতীয় রেকর্ড গড়েছেন সেনাবাহিনীর সাইক্লিস্টরা। মিরপুর সৈয়দ নজরুল ইসলাম জাতীয় সুইমিং কমপ্লেক্সে সাঁতারের তৃতীয়দিনে হয়েছে আরও দু’টি নতুন রেকর্ড। এ নিয়ে তিনদিনে সাঁতারে হয়েছে আটটি রেকর্ড। এ ইভেন্টের প্রথম ও দ্বিতীয়দিনে হয়েছে তিনটি করে নতুন রেকর্ড। সবমিলিয়ে দলগতভাবে পুরো গেমসে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দাপট দেখিয়ে চলেছে। তবে স্কেটিংয়ে ১২টি ইভেন্টের সবকটিতে স্বর্ণ জিতে একতরফা আধিপত্য দেখিয়েছে বাংলাদেশ আনসার। সাইক্লিংয়ে নারীদের ১২০০ মিটার টিম টাইম ট্রায়ালে সেনাবাহিনীর শিল্পী খাতুন সুবর্ণা বর্মা, সমাপ্তি বিশ্বাস ও গীতা রায় ১ মিনিট ৫২.৬৯ সেকেন্ড সময় নিয়ে নতুন রেকর্ড গড়েন। আগের রেকর্ডটি ছিল বাংলাদেশ আনসারের ২০১৩ সালে ২ মিনিট ০১.১২ সেকেন্ডের। পুরুষদের ১৬০০ মিটার টিম ট্রায়ালে সেনাবাহিনীর বিশ্বাস ফয়সাল হোসেন, আলমগীর হোসেন, মুক্তাদুর আল হাসান ও শরিফুল ইসলাম ২ মিনিট ১৪.৫৯ সেকেন্ডে নতুন রেকর্ড গড়েন। আগের রেকর্ডটিও ছিল আনসারের ২০১৮ সালে ২ মিনিট ২১.৩২ সেকেন্ডে।

নারীদের ৪০০০ মিটার স্ক্র্যাচ রেসে সেনাবাহিনীর সুবর্ণা বর্মা ৭ মিনিট ০৩.৫৮ সেকেন্ড সময় নিয়ে নতুন রেকর্ড গড়েন। আগের রেকর্ডটি ছিল ২০১৮ সালে ৮ মিনিট ৫৩ সেকেন্ডে তৎকালীন বিজেএমসির সমাপ্তি বিশ্বাসের। পুরুষদের ৪০০০ মিটার টিম পারস্যুটে সেনাবাহিনীর বিশ্বাস ফয়সাল হোসাইন, শরিফুল ইসলাম, মিজানুর রহমান ও হেলালউদ্দিন ৫ মিনিট ৫২.১৮ সেকেন্ডে নতুন রেকর্ড গড়েন। আগের রেকর্ডটি ছিল ২০১৮ ৬ মিনিট ১২.৪ সেকেন্ডে বাংলাদেশ আনসারের। নারীদের ২০০০ মিটার টিম পারস্যুটে সেনাবাহিনীর শিল্পী খাতুন, সুবর্ণা বর্মা, সমাপ্তি বিশ্বাস ও সুমিত্রা গাইন ৩ মিনিট ১৭.৬৪ সেকেন্ডে নতুন রেকর্ড গড়েন। ২০১৮ সালে আগের রেকর্ডটি ছিল আনসারের ৩ মিনিট ৩০.৬১ সেকেন্ডের।

সাঁতারে ২০০ মিটার বাটারফ্লাইয়ে সেনাবাহিনীর কাজল মিয়া ও ৪০০ মিটার ফ্রিস্টাইলে সেনাবাহিনীর ফয়সাল আহমেদ দু’টি নতুন রেকর্ড গড়েছেন। ছেলেদের ২০০ মিটার বাটারফ্লাইয়ে ২ মিনিট ১০.৯২ সেকেন্ড সময় নিয়ে রেকর্ড গড়েন কাজল মিয়া। নিজ দলের জুয়েল আহমেদের ২০১৯ সালে গড়া রেকর্ড ভাঙ্গেন তিনি। ৪০০ মিটার ফ্রিস্টাইলে রেকর্ড গড়তে ফয়সাল আহমেদ সময় নিয়েছেন ৪ মিনিট ১৮.২৩ সেকেন্ড। ২০১৯ সালে নিজের গড়া রেকর্ড (৪ মিনিট ১৮.২৫) ভেঙ্গেছেন ফয়সাল। নারীদের ২০০ মিটার বাটারফ্লাইয়ে সোনা জিতেছেন নৌবাহিনীর সোনিয়া আক্তার। তিনি সময় নিয়েছেন ২ মিনিট ৪২.৫৩ সেকেন্ড। ১ মিনিট ৭.০১ সেকেন্ড সময় নিয়ে ছেলেদের ১০০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকে সোনা জিতেছেন সেনাবাহিনীর সুকুমার রাজবংশী। ২০০ মিটার বাটারফ্লাইয়ের পর ৪০০ মিটার ফ্রিস্টাইলে দ্বিতীয় সোনা জিতেছেন নৌবাহিনীর সোনিয়া আক্তার টুম্পা। ৮০০ মিটার বাটারফ্লাই ও ৫০ মিটার ফ্রিস্টাইল ইভেন্ট নিয়ে তিনদিনে সোনিয়া জিতেছেন চতুর্থ ব্যক্তিগত সোনা।

শূটিংয়ে বাজিমাত করেছেন কুষ্টিয়া রাইফেলস ক্লাবের তারকা শূটার আরদিনা ফেরদৌস আঁখি। তিনি মেয়েদের সিনিয়র বিভাগে ২৫ মিটার এয়ার পিস্তল ইভেন্টে ৫৫১ স্কোর করে স্বর্ণ ও ১০ মিটার এয়ার পিস্তল ইভেন্টে ব্রোঞ্জপদক জিতেছেন। ১০ মিটার এয়ার পিস্তল মহিলা জুনিয়র ইভেন্টে স্বর্ণ জিতেছেন নেভি শূটিং ক্লাবের তুরিং দেওয়ান। সবমিলিয়ে শূটিংয়ে আর্মি শূটিং এ্যাসোসিয়েশন ৮ স্বর্ণ, ৫ রৌপ্য ও ৫ ব্রোঞ্জসহ মোট ১৮ পদক নিয়ে প্রথম হয়েছে। নেভি শূটিং ক্লাব ৩ স্বর্ণ, ৪ রৌপ্য ও ৪ ব্রোঞ্জসহ মোট ১১ পদক নিয়ে হয়েছে দ্বিতীয়।

এদিকে সরাসরি টোকিও অলিম্পিকে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে হৈচৈ ফেলে দেয়া আরচার রোমান সানা গেমসে ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ হচ্ছেন। এখন পর্যন্ত তিনটি ইভেন্টে খেলা রোমান একটি পদকও জিততে পারেননি। রবিবার রিকার্ভ ব্যক্তিগত ইভেন্টে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে হেরে যান তারকা এই আরচার। ব্যর্থতার এ ধারা অব্যাহত থাকে সোমবারও। টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়ামে রিকার্ভ পুরুষ দলগত ও রিকার্ভ মিশ্র দ্বৈত ইভেন্টেও ব্যর্থ হয়েছেন রোমান।

ধারাবাহিক ব্যর্থতা প্রসঙ্গে রোমান সানা বলেন, ‘নানাদিকে চাপ থাকে আমার। জুনিয়ররা খেলে চাপমুক্তভাবে। যেভাবে ইচ্ছে সেভাবে মারে তারা। আমার ডিপার্টমেন্টের টেনশন, কোচের টেনশন, অলিম্পিকের টেনশন, সবকিছু মিলিয়ে অনেক চাপে আছি। আর আমাকে নিয়ে সবার প্রত্যাশা থাকে। সবসময় মাথায় থাকে আমাকে ভাল করতেই হবে। যে কারণে অন্যরকম প্রেসারে পড়ে ভাল হচ্ছে না।’

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT