ঢাকা, শুক্রবার ৩০ জুলাই ২০২১, ১৫ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

শিরোনাম
◈ রক্ষক যেনো ভক্ষকের ভুমিকায় না যায়! কুষ্টিয়ায় অবৈধ উপায়ে কাউন্সিলরের অফিস নির্মাণের অভিযোগ ◈ বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ৪২ লাখ ছাড়াল ◈ জনগণের পাশে দাঁড়ানোর অক্ষমতা ঢাকতে বিএনপির মিথ্যাচার : ওবায়দুল কাদের ◈ যার হয়ে জেলে ছিলেন মিনু, অবশেষে গ্রেপ্তার সেই কুলসুমী ◈ মন্ত্রিপরিষদ সচিবের সঙ্গে বৈঠক কারখানা খুলে দিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ব্যবসায়ীদের আবেদন ◈ হকিতে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে কোয়ার্টারে ভারত ◈ টোকিও অলিম্পিক: সাঁতারে বিশ্ব রেকর্ড গড়ল চীন ◈ ঠিক সময়ে শুটিং শেষ না হলে পারিশ্রমিক দ্বিগুণ! ◈ মেরিলিন মনরোর বায়োপিক নিয়ে খারাপ খবর ◈ সিগারেট নয়, গাঁজায় ভবিষ্যৎ দেখছে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ মধুখালীতে১০জনের বিরুদ্ধে কোর্টে মামলা

প্রকাশিত : 03:05 PM, 16 September 2020 Wednesday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়নের উথলী আমডাঙ্গা কাজী ফরিদা সিরাজ উচ্চ বিদ্যানিকেতনে সহকারী শিক্ষক মাকসুদা পারভীন ২০০২ সালে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে ২০২০ সালে এমপিও ভুক্তের সময় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পারমিস সুলতানা, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবরে মাকসুদার পারভীনের এমপিও ভুক্তির কাগজপত্র না পাঠিয়ে নিজের কাছে রেখে দেন। যে কারনে মাকসুদা পারভীন এমপিও থেকে বাদ পড়েন। এমপিও ভুক্তি না হওয়ায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পারমিস সুলতানা ও উর্দ্ধতন কর্মকর্তাসহ মোট ১০জনকে বিবাদী করে বিজ্ঞ মধুখালী সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা করেছেন মাকসুদা পারভীন।
আদালতের দেওয়ানী মামলা নং ৪১/২০২০, তারিখ ৫ আগস্ট ২০২০ খ্রিঃ সুত্রে জানা গেছে। কাজী ফরিদা সিরাজ উচ্চ বিদ্যানিকেতনে সহকারী শিক্ষক সমাজ বিজ্ঞান অতিরিক্ত শাখা সৃষ্ঠ ‘খ’পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করলে
মাকসুদা পারভীনসহ অনেকেই আবেদন করেন। যাচাই বাছাই শেষে ২৫ মে ২০০২ খ্রিঃ তারিখে বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক মাকসুদা পারভীনের বরাবরে ২৫ মে ২০০২ খ্রিঃ তারিখে নিয়োগপত্র ইস্যু করেন। তিনি নিয়োগপত্র প্রাপ্ত হয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বরাবর ২৯ মে ২০০২ খ্রিঃ তারিখে যোগদান করেন। সে২০০২ সালে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে বিনা বেতনে দায়ীত্ব কর্তব্য পালন করে আছেন। সম্প্রতি ২০২০ সালের মার্চ মাসে বিদ্যালয়টি এমপিও ভুক্ত হয়। এমপিও ভুক্তের প্রয়োজনীয় সকল আবশ্যিক বৈধ কাগজপত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. এনামুল হক অন্যান্য সকল শিক্ষক কর্মচারীর সাথে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পারমিস সুলতানার দপ্তরে জমাদেন।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পারমিস সুলতানা এমপিও ভুক্তির জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবরে অন্যান্য সকলে কাগজত্র পাঠালেও, মাকসুদা পারভীনের কাগজপত্রাদি না পাঠিয়ে নিজের কাছে রেখে দেন। প্রয়োজনীয় চাহিদা মাফিক অর্থ প্রদান না করায়, মাকসুদা পাভীন এমপিও থেকে বাদ পড়েন বলে মামলার নথিতে উল্লেখ করেন। মামলার অন্যান্য বিবাদীগণ হলেন বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি,সচিব,ফরিদপুর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা,মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক, বেনবেইজের পরিচালক, ফরিদপুর জেলা প্রশাসক , মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা ঢাকা অ লের উপপরিচালক এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.এনামুল হককে মাকসুদা পারভীন এমপিও ভুক্তি না হওয়ার কারন জানতে চাইলে তিনি বলেন তাঁর নিয়োগ বৈধ। এমপিও ভুক্তের জন্য চাহিদা মত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার দপ্তরে জমা দেওয়া হয়েছে। কেন তিনি পাঠান নাই তিনিই ভাল বলতে পারবেন। আমার জানা নাই। এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পারমিস সুলতানার কাছে তাঁর মোবাইলে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি গাড়ীতে। মামলা হয়েছে জানি। রোববারে অফিসে আসেন বিস্তারিত বলবো।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT