ঢাকা, বুধবার ২৭ জানুয়ারি ২০২১, ১৪ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

আওয়ামী লীগ তুহিনকে নিয়ে ভোট করতে চাই

প্রকাশিত : 09:10 PM, 17 October 2020 Saturday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

রাজশাহীর তানোরের মুন্ডুমালা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগে শক্তিশালী প্রার্থীর সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ফলে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তরুণ, মেধাবী ও আদর্শিক নেতৃত্ব শরিফ তুহিনকে মেয়র প্রার্থী করার জন্য দলের নীতিনির্ধারকদের দৃস্টি আকর্ষণ করেছেন।স্থানীয় আওয়ামী লীগের ভাষ্য ,তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের (দায়িত্বহীন) সভাপতি ও মুন্ডুমালা পৌর মেয়র গোলাম রাব্বানীর বিরুদ্ধে গত ১০ বছরে নানাবিধ অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগের পাহাড় জমেছে। অসদাচরণ, কাঙ্খিত সেবা দিতে ব্যর্থ নিয়োগ বাণিজ্য, অর্থ ব্যয়ে স্বচ্ছতার অভাব, উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে বরাদ্দের সিংহভাগ টাকা লোপাট এবং পৌরবাসীর ভোগান্তি লাঘবে চরম উদাসীন থেকে নিজেদের আখের গুছিয়েছেন । তেমন কোনো দৃশ্যমান উন্নয়ন না হওয়ায় পৌরসভার চেহারা প্রায় বিবর্ণ। উন্নয়ন বলতে কিছুই হয়নি। পৌরসভা হলেও এখানে ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) মতো নাগরিক সেবা নাই এমনকি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রায় ১৫ মাসের বেতন ভাতা ও বিপুল অঙ্কের টাকা বিদ্যুৎ বিল বাকি রয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, পৌরসভার বছরে রাজস্ব আয় প্রায় দেড় কোটি টাকা আর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন ভাতায় প্রয়োজন প্রায় ৯০ লাখ টাকা তার পরেও কেনো মাসের পর মাস বেতন-ভাতা বাঁকি-? পৌরবাসীর অভিযোগ, মেয়র গোলাম রাব্বানী, সচিব আবুল হোসেন ও হিসাব রক্ষক আব্দুল সিন্ডিকেট করে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা নয়ছয় করে নিজেরা মোটাতাজা হলেও উন্নয়ন বঞ্চিত গোটা পৌর এলাকা যেন একটা ভাগাড়। এসব কারণে মেয়রের প্রতি পৌরবাসী ক্ষুব্ধ। তারা কোনো অবস্থাতেই আর মেয়রের চেয়ারে গোলাম রাব্বানীকে দেখতে চাই না তার জনপ্রিয়তা এখন তলানিতে দেখা দিয়েছে ইমেজ সঙ্কট। ফলে তাকে দিয়ে আওয়ামী লীগের পক্ষে মেয়রের চেয়ারের দখল নেয়া প্রায় অসম্ভব বলে একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেছে। এদিকে পৌর এলাকায় মেয়র অনেকটা জনবিচ্ছিন্ন ও জনপ্রিয়তা তলানিতে থাকলেও প্রকাশ্যে কেউ তার বিপক্ষে কোনো কথা বলার সাহস রাখে না। একদিকে গোলাম রাব্বানীকে দিয়ে এখানে বিজয়ী হওয়া প্রায় অসম্ভব, অন্যদিকে এখানে তার বিকল্প তেমন কোনো নেতৃত্ব নাই যিনি বিজয়ী হতে পারবেন। ফলে স্খানীয় আওয়ামী লীগ এবার শহর কেন্দ্রিক বিত্তশীল পরিবারের আদর্শিক ও পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি ইমেজ সম্পন্ন নেতৃত্ব মেয়র পদে প্রার্থী করতে চাই। এসব বিবেচনায় মুন্ডুমালা পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে শরিফ তুহিনকে প্রার্থী করতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আদাজল খেয়ে মাঠে নেমেছেন পাশাপাশি হাইকমান্ডের দৃস্টি আকর্ষণ করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কাউন্সিলর বলেন, মেয়র গোলাম রাব্বানী এমপি হবার খোয়াব দেখে স্থানীয় এমপির সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে তিনি নিজে তো রাজনীতিতে দেওলিয়া হয়েছেন, পাশাপাশি পৌরসভার নাগরিকদের নাগরিক সেবা থেকে বঞ্চিত করেছেন।এছাড়াও পৌরসভার অর্থ তছরুপ করে নিজে মোটাতাজা হয়ে পৌরবাসীর কাছে তিনি উন্নয়ন বান্ধব নয় উন্নয়নের প্রতিবন্ধকতা রুপে চিহ্নিত হয়েছেন।

এদিকে শরিফ তুহিন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরীর তিনি এক জন সৈনিক। তিনি বলেন, এমপি মহোদয়ের নির্দেশনার বাইরে তিনি কখানো একটি ধাপও দেননি, আগামিতেও দিবেন না। রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শরিফ খাঁন বলেন, মুন্ডুমালা পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থীতা নিয়ে দলের নেতাকর্মীদের মনে যে দ্বিধা-দন্দ রয়েছে, শরিফ তুহিনকে প্রার্থী করা হলে সেটা নিশ্চিত দুর হবে এবং তিনি একজন যোগ্য প্রার্থী হবেন।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT