ঢাকা, মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

অ্যাসোসিয়েট অক্সিজেনের সন্দেহজনক দরবৃদ্ধি

প্রকাশিত : 01:57 PM, 9 November 2020 Monday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের কোম্পানি অ্যাসোসিয়েট অক্সিজেন লিমিটেডের শেয়ার দর দিনদিন বাড়ছেই। কোথায় গিয়ে থামবে এই কোম্পানির দর এটি নিয়েই এখন সবত্র আলোচনা চলছে। গত ১৩ কার্যদিবসে কোম্পানিটির শেয়ার দর বেড়েছে ৪০ টাকা ২০ পয়সা। কারসাজির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দর বাড়ানো হচ্ছে বলে ধারনা করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

বাজার বিশ্লেষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, লেনদেন শুরুর পর দিন থেকেই কোম্পানিটির কোটির ওপর শেয়ারের ক্রয়াদেশ দেওয়া থাকতো। কারসাজির উদ্দেশ্য ছাড়া এক কোটির ওপর শেয়ারের ক্রয়াদেশ দেওয়া থাকে না। শুধু তাই নয়, ৩৯ টাকার ওপর দর না পৌছা পর্যন্ত কোম্পানিটির ১ লাখের ওপর লেনদেনই হতো না। প্রথম বারের মতো ৩৯ দশমিক ৭০ টাকায় কোম্পানিটির ৫৭ লাখের ওপর শেয়ার লেনদেন হয়। পরের দিন সার্কিট ব্রেকার না থাকার সুযোগ কাজে লাগায় একটি চক্র। দাম বাড়া-কমার কোন সীমা না থাকায় এক দিনে কোম্পানিটির দর ২৮ শতা ংশের ওপর বাড়ানো হয়। রবিবার কোম্পানিটির সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ দর বাড়ে। তাই এভাবে ক্রমাগত দর বাড়ার পেছনে কারও না কারও হাত রয়েছে। কিন্তু ঢাকা স্টক একচেঞ্জ এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড একচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কোন উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। খুব দ্রুত এ্ই কোম্পানির দরবৃদ্ধি নজরে না আনলে আরেকটি শাহজিবাজার কেলেঙ্কারি হতে যাচ্ছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে জানা গেছে, গত মাস অর্থাৎ অক্টোবরের ২৫ তারিখ থেকে কোম্পানিটি ডিএসইতে লেনদেন শুরু করে। লেনদেন শুরুর দিন কোম্পানিটির দর ছিলো ১৫ টাকা। গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার দিনশেষে কোম্পানিটি সর্বশেষ ৫৫ টাকা ২০ পয়সায় লেনদেন হয়।

এই দর বাড়াকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, এক শ্রেণির অসাধু সিন্ডিকেট কারসাজির মাধ্যমে কোম্পানিটির দর বাড়িয়ে দিচ্ছে। এতে বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলেও মনে করেন তারা।

অ্যাসোসিয়েট অক্সিজেন লিমিটেডের ইস্যু ম্যানেজার বিডি ফাইন্যান্স ক্যাপিটাল হোল্ডিংস লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) বড়ুন পাল বলেন, শেয়ার দর বাড়ার বিষয়টি আমরা বলতে পারি না। এটা নিয়ে মন্তব্য করাও আমাদের কাজ না। তবে নতুন শেয়ার হিসেবে বাজারে এর চাহিদা বেশি। তাছাড়া গত বুধবার কোম্পানিটি লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এর প্রভাবও কিছুটা থাকতে পারে। তবে দাম বাড়ার কারণ ভালো জানে জনগণ বা ক্রেতা-বিক্রেতারা।

এদিকে, গত বুধবার কোম্পানিটি ৩০ জুন ২০২০ সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে শেয়ার হোল্ডারদের জন্য ১০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ২ শতাংশ নগদ এবং ৮ শতাংশ বোনাস।

সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক পতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৮৭ পয়সা। একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৯ টাকা ২৫ পয়সা।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT